মেইন ম্যেনু

‘বৃহৎ সিলিন্ডার ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বাড়াতে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি’

তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা কমিটির সদস‌্য সচিব সচিব আনু মুহাম্মদ বলেছেন, জনগণকে জিম্মি রেখে বৃহৎ সিলিন্ডার ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বাড়াতে সরকার গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে এ কথা বলেন তিনি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অধ্যাপক বলেন, জনগণকে জিম্মি রেখে বৃহৎ সিলিন্ডার ব্যবসায়ীদের ব্যবসা বাড়াতে সরকারের দুটো কাজ। এক. বিভিন্ন স্থানে গ্যাসের কৃত্রিম সংকট তৈরি এবং দুই. গ্যাসের দাম বাড়ানো। দুটো কাজই সরকার করছে।

তিনি বলেন, এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন নামে একটি দোকান আছে যার কাজ হলো গণশুনানির নাটক করা, শুনানিতে যাই প্রমাণ হোক না কেন সরকারের ইচ্ছামতো গ্যাসের দাম বাড়ানো। বরাবরের মতো এবারও তাই হয়েছে। গণশুনানিতে প্রমাণিত হয়েছে গ্যাসের দাম বাড়ানোর কোনো যুক্তি নেই, তবুও যেহেতু সরকারের ইচ্ছা তাই আবারো গ্যাসের দাম বাড়ানো হলো। এর ফলে পরিবহণ ব্যয় বাড়বে, বিদ্যুতের দাম আবারও বাড়ানোর ক্ষেত্র তৈরি হবে। ফলে বাড়িভাড়াসহ সবকিছুরই দাম বাড়বে।

আনু মুহাম্মদ তার স্ট্যাটাসে বলেন, জনগণের পকেট কেটে ঋণ ও দুর্নীতিনির্ভর বিভিন্ন প্রকল্পের অর্থ যোগান দেওয়াও সরকারের বিশেষ মনোযোগের বিষয়। একই কারণে এতোদিন ধরে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম কম থাকা সত্ত্বেও তারা দাম কমায়নি। একটি বড় সুযোগ থেকে দেশের অর্থনীতি ও মানুষ বঞ্চিত হয়েছে। যুক্তি আর জনস্বার্থ বিবেচনার সময় বা আগ্রহ কোনোটাই সরকারের নাই। সরকারের বিশ্বাস জনস্বার্থবিরোধী যা খুশি তারা তাই করতে পারে।

আগামী ১ মার্চ থেকে বাসাবাড়িসহ সব ধরনের গ্যাসের দাম বাড়ছে। ১ মার্চ ও ১ জুন দুই ধাপে এ মূল্য বাড়ানো হবে। আবাসিকে ১ মার্চ থেকে এক বার্নার চুলার মূল্য হবে ৭৫০ টাকা এবং জুন থেকে সেটি হবে ৯০০ টাকা। এছাড়া ১ মার্চ থেকে দুই বার্নারের চুলার মূল্য হবে ৮০০ টাকা এবং ১ জুন থেকে সেটি ৯৫০ টাকা হবে।

বৃহস্পতিবার কারওয়ানবাজারে বাংলাদেশ অ্যানার্জি রেগুলেটরি কমিশন কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান মনোয়ার ইসলাম।

এছাড়াও যানবাহনে ব‌্যবহৃত রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাসের (সিএনজি) দাম ১ মার্চ থেকে প্রতি ঘনমিটার ৩৮ টাকা এবং ১ জুন থেকে ৪০ টাকা করা হবে।

গণবিজ্ঞপ্তিতে গৃহস্থালি ও সিএনজিসহ বিদ্যুৎ, সার ও শিল্প খাতেও গ্যাসের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়।

এর আগে ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর ভোক্তা পর্যায়ে গ্যাসের দাম বাড়ায় বিইআরসি। বর্তমানে আবাসিক ব্যবহারে দুই চুলার জন্য ৬৫০ টাকা ও এক চুলার জন্য ৬০০ টাকা দিতে হয় ভোক্তাদের। তারও আগে দুই চুলার জন্য ৪৫০ টাকা এক চুলার জন্য ৪০০ টাকা নির্ধারিত ছিল।






মন্তব্য চালু নেই