মেইন ম্যেনু

বিয়ের আগে ও পরে…

পরিপূর্ণ একটি জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ হলো বিয়ে। স্বাভাবিক রীতি অনুসারে বিয়ের আগেই সবাই জ্ঞান বুদ্ধিতে পক্কতা লাভ করে। তবে বৈবাহিক জীবন নিয়ে থাকে নানা ধরণের অস্পষ্ট ধারণা। তবে বিয়ের পর পুরুষরা এমন কিছু অভিজ্ঞতার সম্মুখিন হন যা আগে কখনোই ভাবতে পারেনি। আসুন জেনে নেয়া যাক বিয়ের পরে পুরুষের ধারণার কি ধরণের পরিবর্তন আসে।

স্বেচ্ছাবন্দী

বিয়ের পর স্ত্রীর নিষেধ না থাকলেও নিজের বিবেকের তাড়নায় পুরুষ জীবন মোটামুটি বন্দী হয়ে যায়। কর্মস্থলে ব্যস্ত সময় পার করে ঠিকই ফিরতে হয় ঘরের টানে। বন্ধুদের সঙ্গে অফুরন্ত আড্ডাবাজির দিন শেষ হয় আঘোষিত ভাবেই।

পরিবারের প্রতি কর্তব্য

বিয়ে করার কিছুদিনের মধ্যেই টের পাবেন দাম্পত্য জীবনের কর্তব্য কি? বিয়ের আগে বাড়িতে আত্মীয় স্বজন এলেও কোনো কিছু ভাবার ছিলো না। কিন্তু বিয়ের পর ইচ্ছার বিরুদ্ধেই বলেন আর কর্তব্যের খাতিরেই বলেন তাদের আতিথীয়তা করতে হয়। তাছাড়া বউয়ের যাবতীয় দায়-দায়িত্ব তো আছেই।

বাচ্চার প্রতি টান

বিয়ের পর যখন প্রথম সন্তান আসে, তখন একজন বাবা টের পান সন্তানের মর্ম। অবিবাহিত জীবনে যত বেশিই উড়নচণ্ডী থাকুন না কেন, সন্তানের প্রতি মায়া আপনাকে করে তুলবে দায়িত্ববোধ সম্পন্ন বাবা।

মেনে নেয়ার ক্ষমতা

বিয়ের পর অনেক কিছুই মেনে নেয়ার ক্ষমতা বাড়াতে হয়। স্ত্রীর ছোট খাটো অসঙ্গতীপূর্ণ আচরণ, তার চাহিদা পূরণ ইত্যাদি। সংসারে শান্তি বজায় রাখতে প্রত্যেকটি পুরুষ এগুলো করতে বাধ্য হন।

যৌনতায় শিথিলতা

বিয়ের আগে যৌন জীবন নিয়ে পুরুষ যতটা অস্থির থাকেন, বিয়ের পর ঠিক ততটা থাকে না। অনেকটাই স্তিমিত হয়ে আসে। বেশিরভাগ পুরুষই এটা বিয়ের পর অনুভব করেন।






মন্তব্য চালু নেই