মেইন ম্যেনু

বিহারিরা আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীদের বর্বর হামলার শিকার: খালেদা

রাজধানী কালশীতে বিহারী ক্যাম্পে সংঘর্ষ ও অগ্নিসংযোগে ১০ জন নিহত হওয়ার ঘটনাকে ‘আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এবং আওয়ামী সন্ত্রাসীদের দ্বারা সংঘটিত কাপুরুষোচিত ও বর্বর হামলা’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তিনি এ ঘটনা তদন্ত বিচার বিভাগীয় তদন্তও দাবি করেছেন।

শনিবার বিকেলে সংঘর্ষ ও অগ্নিসংযোগে ১০ জন নিহত হওয়ার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিবৃতিতে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, “বিহারী ক্যাম্পে আওয়ামী সন্ত্রাসীদের দ্বারা অগ্নিসংযোগ এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক নিরীহ মানুষের ওপর ন্যাক্কারজনক হামলায় ১০ জনের প্রাণহানী এবং বহু লোক আহত হয়েছে।” তিনি এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।

খালেদা বলেন, “যেকোনো ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড মানবতার পরিপন্থী কাজ- এই সন্ত্রাসীরা মানবজাতির শত্রু।”

আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এবং আওয়ামী সন্ত্রাসীদের দ্বারা সংঘটিত এই হামলাকে কাপুরুষোচিত ও বর্বর হামলা হিসেবে অভিহিত করে খালেদা বলেন, “বিএনপি যেকোনো ধরনের সন্ত্রাসী আক্রমণকে মানব সভ্যতা ধ্বংসকারী কর্মকাণ্ড বলে মনে করে।”

খালেদা বলেন, “সরকার আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোকে দলীয় ক্যাডার হিসেবে ব্যবহার করার জন্যই তারা এখন বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তাই সরকারি দলের সন্ত্রাসীদের সহযোগী হিসেবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো শুধুমাত্র বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীদের ওপরই পৈশাচিক হামলা চালাচ্ছে না, এদের কারণেই সাধারণ নাগরিকরাও ভয়ে ও আতঙ্কের মধ্যে দিনাতিপাত করছে।”

তিনি রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসসহ সকল সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে দেশবাসীর সঙ্গে একাত্ম হয়ে লড়াই চালিয়ে যাবার দৃঢ় অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন বিবৃতিতে।

খালেদা জিয়া জীবন বিনাশী রক্তক্ষয়ী কর্মকাণ্ডের বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে মানুষের জানমালের নিরাপত্তা বিঘ্নকারী দোষীদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জোর দাবি জানান। এছাড়া বেগম জিয়া ক্ষতিগ্রস্তদের যথোপযুক্ত ক্ষতিপূরণ এবং পূণর্বাসনেরও জোর দাবি করেন।

সংঘর্ষে নিহতদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত এবং আহতদের আশু সুস্থতা কামনা করেন বিএনপি প্রধান।






মন্তব্য চালু নেই