মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিসের প্রয়োজন নেই নেপালে

ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্তদের উদ্ধারে সহায়তার জন্য বাংলাদেশের ফায়ার সার্ভিসের (দমকলবাহিনী) দলটির নেপালে যাওয়ার প্রায়োজন নেই বলে জানিয়েছে দেশটির সরকার।

কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাশফি বিনতে শামস বলেছেন, ভূমিকম্পের পর বহু ভবন ধসে পরে অনেক মানুষ চাপা পরায় এরকম উদ্ধারকারী দলের প্রয়োজন হয়েছিল। কিন্তু গত তিন-চার দিনে এই প্রয়োজনিয়তা শেষ হয়ে গেছে। তাই কাঠমন্ডু সরকার বলছে এখন আর এই সাহায্য দরকার নেই।’ এমনটাই জানিয়েছে বিবিসি।

জানা গেছে, ভূমিকম্পের দু’দিন পর (২৭ এপ্রিল) থেকে বাংলাদেশের ফায়ার সার্ভিসের একটি দল নেপালে পাঠানোর চিন্তা-ভাবনা চলছিল। কিন্তু বিভিন্ন কারণে দলটি নেপালে পাঠতে দেরি হয়ে গেছে। যদিও উদ্ধারকাজের জন্য নেপাল কোনো দেশের কাছ থেকেই নতুন করে কোনো সাহায্য চাইছে না।

এর আগে বাংলাদেশের একটি সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছিল, এই প্রথম দেশের ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের কোনো দল দেশের বাইরে উদ্ধার কার্যক্রমে অংশ নেবে। দমকল বিভাগের পরিচালক মেজর শাকিল নেওয়াজের নেতৃত্বে ২২ সদস্যের ওই দলটি উদ্ধার কাজে অংশ নেয়ার কথা ছিল। এই সদস্যদের দুর্যোগ মোকাবেলা এবং ভবন ধস জাতীয় দুর্ঘটনা ব্যবস্থাপনায় বিশেষ প্রশিক্ষণ রয়েছে বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে। এমনকি তাদের সঙ্গে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জামাদিও ছিল।

এদিকে নেপালে গত শনিবার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানার পর এখন পর্যন্ত সাড়ে ৫ হাজার মানুষ নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে কমপক্ষে দশ হাজার লোক।

আর জাতিসংঘের হিসাবে শক্তিশালী ওই ভূমিকম্পে ৮০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সত্তর হাজারের বেশি ঘরবাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে গেছে। পর্যটন নির্ভর বিধ্বস্ত এ দেশটিকে ঘুরে দাঁড়াতে বেশকিছু সময় লাগবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।






মন্তব্য চালু নেই