মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশের জনপ্রিয় তারকাদের স্ক্যান্ডাল, অভিশাপ নাকি আশীর্বাদ?

তারকাদের জীবনে স্ক্যান্ডাল কখনো আশীর্বাদ, অভিশাপরূপে আসে। শুধু সেক্স স্ক্যান্ডাল দিয়ে রাতারাতি বড় তারকা বনে গেছেন হলিউডের কিম কার্দেশিয়ানের মতো আরো অনেক তারকা। আবার সেক্স স্ক্যান্ডালের কারণে ক্যারিয়ারে ধস নেমেছে এমন উদাহরণ বাংলাদেশী প্রভাসহ অনেক আছে।

হলিউড কিংবা বলিউডের মতো সেক্স স্ক্যান্ডালের ঘটনা বাংলাদেশের শোবিজে খুব বেশি নেই। যা আছে তাও ফেক। তারকারা অপপ্রচারের বলি। তবে সব আবার ফেক না। সত্য-মিথ্যা মিলে সর্বাধিক আলোচিত ১৫ তারকাদের নিয়ে থাকছে এই ধারাবাহিক আয়োজন। আজ থাকছে এর প্রথম পর্ব।

4
শমী কায়সারঃ
শমী কায়সার বেশ কিছুদিন থেকে অভিনয়ের বাইরে আছেন। একসময়ে দাপটের সঙ্গে অভিনয় করেছেন শমী কায়সার। শমী কায়সার তার অভিনয় জীবনে সবচেয়ে আলোচিত হন সেক্স স্ক্যান্ডালের কারণে। কলকাতার রিঙ্গোকে ভালোবেসে বিয়ে করেন তিনি। তাদের গোপন ভিডিও বাজারে আসে ২০০৩ সালের দিকে। এসময় সিডি তৈরি করে ব্যবসা করেন অসাধু ব্যবসায়ীরা।

prova-bangladeshi-model-1সাদিয়া জাহান প্রভাঃ
জনপ্রিয় অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভা যখন দেশের শীর্ষ মডেল ও অভিনেত্রী, ঠিক সেই সময়েই তার একটি ভিডিও ফুটেজ বাজারে ছাড়েন তার সেই সময়ের হবু বর রাজীব। মুহূর্তেই তা দেশ বিদেশে ছড়িয়ে পড়ে। রাজীব এবং প্রভার বিয়ে পারিবারিকভাবেই চূড়ান্ত হয়েছিলো। সব ঠিকঠাক এগুচ্ছিলোও। তাই অনেকটা দাম্পত্য জীবনের মতোই ছিলো তাদের সম্পর্ক। কিন্তু এর মাঝে অভিনেতা অপূর্বর সাথে প্রভার মনদেয়া নেয়া হলে প্রভা পালিয়ে অপূর্বকে বিয়ে করে বসেন। এরপরই প্রতিহিংসার বশে রাজীব তার হবু স্ত্রী প্রভার একান্ত সময়ের কিছু ফুটেজ ইন্টারনেটে ছেড়ে দেন। প্রভার পক্ষ থেকে এমনটাই অভিযোগ করা হয়েছিল। এ নিয়ে তুমুল বিতর্কে পরেন প্রভা। অপূর্বর সাথেও সংসার ভেঙ্গে যায়। ক্যারিয়ারে ধস নামে। দীর্ঘ ২ বছর মিডিয়া থেকে আড়ালে ছিলেন তিনি।

পপ তারকা মিলাঃ
জনপ্রিয় পপ শিল্পী মিলা’র ক্যারিয়ার শুরু হয় গানের মাধ্যমেই। পরে অবশ্য বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপনেও মডেলিং করেন এই পপ তারকা। কিন্তু ক্যারিয়ারের জনপ্রিয়তার তুঙ্গে থাকা অবস্থায় হঠাৎ করেই তার নাম চলে আসে ভিডিও স্ক্যান্ডালের তালিকায়। ইন্টারনেটে ‘মিলা’ নামে একটি আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশ করা হয়। ৩৩ সেকেন্ডের ঐ ভিডিওটিতে মাতাল অবস্থায় থাকা তরুণীর চিত্র রয়েছে। এ ঘটনার কয়েকমাস পর মিলা এ বিষয়ে মুখ খোলেন। তিনি দাবি করেন, প্রকাশিত ভিডিও চিত্রের মেয়েটি তিনি নন। এটি আসলেই মিলা কিনা তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন অনেকেই। তবে স্ক্যান্ডাল থেকে রক্ষা পাননি তিনি।

নাদিরা নাছিম চৈতিঃ
প্রভার আপত্তিকর ভিডিও চিত্র প্রকাশ হওয়ার রেশ কাটতে না কাটতেই পরের বছরই মডেল ও উপস্থাপিকা চৈতির একটি আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশ হয়। নির্মাতা এনামুল কবির নির্ঝরের সাথে এই ভিডিওতে আপত্তিকর অবস্থায় দেখা যায় চৈতিকে। ভিডিওটি মোবাইলে ধারণ করা হয়েছিলো। এই আপত্তিকর ভিডিও চিত্রটি প্রকাশের পরপরই তুমুল সমালোচনার মধ্যে পড়েন চৈতি। এ ঘটনা মিডিয়া অঙ্গনসহ সাধারণ মহলেও বিষয়টি নিয়ে কড়া সমালোচনার সৃষ্টি হয়। এরপর অনেক দিন মিডিয়ায় দেখা যায়নি এই তারকাকে।

অরুণ চৌধুরীঃ
নাট্যকার ও সাংবাদিক অরুণ চৌধুরীকে জড়িয়ে একটি ভিডিও স্ক্যান্ডাল ছড়িয়ে পড়ে। একটি অফিস কক্ষে গোপন ক্যামেরায় ধারণকৃত এই ভিডিওতে কথিত অরুণ চৌধুরীর সাথে যে নারীটিকে দেখা গেছে সেই নারীটি মডেল বিন্দু বলে বিভিন্ন যায়গায় প্রচার হয়। ভিডিওর ব্যক্তি অরুণ চৌধুরী নয় বলে দাবি করেন স্ত্রী চয়নিকা চৌধুরী। পরে শোনা গেছে অরুণ চৌধুরী এর কারণে চাকুরী হারিয়েছেন।

2মেহজাবিনঃ
বাংলাদেশের সেক্স স্ক্যান্ডালের সর্বশেষ বলি উঠতি তারকা মেহজাবিন। কিছুদিন আগে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে মেহজাবিনের নামে এক পর্নো ক্লিপ। মেহজাবিন অবশ্য জানিয়েছেন, এটি স্রেফ ভাইরাস। তার বিরুদ্ধে শত্রুতা করে কে বা কারা তার নামে এই অপপ্রচার চালিয়েছে।

2
সারিকাঃ
ভিডিও স্ক্যান্ডালের ফাঁদে পড়তে হয়েছে জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী সারিকাকেও। ইন্টারনেটে বেশ কয়েকটি ওয়েব সাইটে সারিকার নামে একটি পর্ণো ভিডিও ছড়িয়ে দেয়া হয়। এই ভিডিও চিত্রটিও সেলফোন, মনিটরে ঘুরে ঘুরে সমালোচনার জন্ম দিয়েছে। তবে প্রকাশিত ভিডিওর নারী চরিত্রটি সারিকা নয় বলে তার ঘনিষ্ঠজনরা দাবি করেছেন।

5পরশীঃ
বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী পরশীও রেহাই পায়নি এই সাইবার ক্রাইম থেকে। ভিডিও স্ক্যান্ডালের শিকার হতে হয়েছে তাকেও। পরশীর নাম ব্যবহার করে একটি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করা হয়। যদিও ভিডিওর মেয়েটির পরিচয় জানা যায়নি।

3
বিন্দুঃ
নাট্যকার ও সাংবাদিক অরুন চৌধুরীকে জড়িয়ে একটি ভিডিও স্ক্যান্ডাল ছড়িয়ে পড়ে। আর এর সাথে যুক্ত হয় জনপ্রিয় তারকা বিন্দুর নাম। একটি অফিস কক্ষে গোপন ক্যামেরায় ধারনকৃত এই ভিডিওতে কথিত অরুন চৌধুরীর সাথে যে নারীটিকে দেখা গেছে সেই নারীটি মডেল বিন্দু বলে বিভিন্ন যায়গায় প্রচার হয়। এটিকে বিন্দুর বিরুদ্ধে অপপ্রচার বলেও দাবি করেন তার নিকটজনরা।






মন্তব্য চালু নেই