মেইন ম্যেনু

বলিউড তারকাদের ঈদ উদযাপন

ঈদ মানেই অফুরন্ত আনন্দ-খুশির সমাহার। ঈদের দিন মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা ধর্মীয় রীতিনীতি পালনের পাশাপাশি উচ্ছ্বাস আর উল্লাসের জোয়ারে যেন হারিয়ে যান। ঈদুল ফিতর দরজায় কড়া নাড়ছে। শত ব্যস্ততার মধ্যে ঈদুল ফিতর পালনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খান, আমির খান, সালমান খান, ক্যাটরিনা কাইফ এবং ইমরান খান।

কিছুদিন আগে প্রথম সন্তানের বাবা হয়েছেন মিস্টার পারফেক্টশনিস্ট আমির খানের ভাগ্নে অভিনেতা ইমরান খান। বলা বাহুল্য, এবারের ঈদের অর্থই তার কাছে অন্যরকম।

ইমরান খান বলেন, ‘ঈদ সবসময়ই আমার কাছে বিশেষ উপলক্ষ। কিন্তু এবছর আমি প্রথমবার সন্তানের সঙ্গে ঈদ করব। সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানাই।’

ঈদ উপলক্ষে নিজ বাড়িতে প্রতি বছর বিশেষ পার্টির আয়োজন করনে শাহরুখ খান। সেই পার্টিতে বলিউডের নামিদামি রথী-মহারথীরা উপস্থিত থাকেন। সকাল বেলা ছেলেকে নিয়ে ঈদের নামাজ আদায় করেন শাহরুখ। এরপর বাসায় ফিরে পুরো পরিবারের সঙ্গে সারা দিন সময় কাটান তিনি। সাধারণত অন্য তারকারা শুটিংয়ের জন্য দেশের বাইরে থাকলেও কিং খান অন্তত ঈদের দিনটিতে কোনো কাজ রাখেন না।

‘মিস্টার পারফেক্টশনিস্ট’খ্যাত আমির খান বরাবরই সাধারণভাবে ঈদ উদযাপন করেন। হাতেগোনা কজন বন্ধু কিংবা পরিচিতজন ছাড়া ঈদে কারো সামনে উপস্থিত হন না তিনি। সকালে মুম্বাই জামে মসজিদে নামাজ পড়েই যে ঘরে প্রবেশ করেন আর বের হন না। দেশে কিংবা বিদেশে যেখানেই ঈদ করুন না কেন, আমির খানের ঈদ মানে একান্ত পরিবার নিয়ে সময় কাটানো। স্ত্রী-সন্তান আর ভাগ্নে ইমরানকে নিয়েই তার ঈদ উদযাপিত হয়।

8_32210

ব্যস্ততার কারণে প্রায়ই দেশের বাইরে ঈদ করতে হলেও মনেপ্রাণে ঈদের দিনটি বাড়িতেই থাকতে চান বলিউডের ব্যাডবয় সালমান খান। পরিবারের বড় ছেলে হিসেবে বেশ দায়িত্ববান তিনি। ঈদের দিন সকালে সালমান খান ভাইদের নিয়ে বাড়ির সামনে মসজিদে নামাজ পড়েন। বাবা সেলিম খানের কড়া হুকুম, যত যাই হোক, ঈদ মানেই পরিবারের সঙ্গে থাকা। আর তার তিন ছেলেÑ সালমান, আরবাজ ও সোহেল বাবার সেই আদেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করেন। ঈদের দিন তাদের বাড়িতে বিশেষ রেসিপির বিরিয়ানি রান্না করা হয়। সালমানের ঈদ পার্টির বিশেষ সুখ্যাতি রয়েছে বলিউড পাড়ায়। প্রতি বছর সালমানের বাড়িতে এই পার্টির আয়োজন করা হয় এবং সালমান খান নিজে আমন্ত্রিত অতিথিদের খোঁজখবর নেন।

এবার সালমানের আনন্দের উৎস শুধু ঈদ নয়। এ ঈদে মুক্তি পাচ্ছে সালমান অভিনীত ছবি ‘কিক’। এই সিনেমায় সালমানের সঙ্গে দেখা যাবে জ্যাকুলিন ফান্দাডেজকে। কমেডিনির্ভর এই ছবিটির টিকিটের মূল্য এরই মধ্যে ১৫-২০ শতাংশ বাড়িয়ে ধার্য করা হয়েছে।

ক্যাটরিনার ঈদ উদযাপনের আর দশটা সাধারণ তরুণীর মতোই। কখনো ভারতে আবার কখনো নিউইয়র্কে ঈদ উদযাপন করেন বলিউডের বারবি ডল। সাধারণত ঈদের দিন বন্ধু-বান্ধবদের সঙ্গে চুটিয়ে আড্ডা দেন ক্যাট। ইতোমধ্যেই পরিবারের সবার জন্য ঈদের উপহার কিনেছেন তিনি।

বলিউড অভিনেত্রী দিয়া মির্জার ঈদ আনন্দ ঈদি আদায়ে। শুনতে একটু অবাক লাগলেও দিয়া মির্জার ঈদ মানেই যেন ঈদি আদায় করা। এখনো শিশুদের মতো বড়দের থেকে ঈদি পেতে ভালোবাসেন তিনি। শুধু তাই নয়, প্রয়োজনে টুইট করেও নিজের ঈদি পাওয়ার কথা স্মরণ করিয়ে দিতে ভুলে যান না।

পরিবারের সঙ্গেই ঈদ উদযাপন করতে ভালোবাসেন সংগীত শিল্পী এ আর রহমান। এ আর রহমান বলেন, ‘ঈদ সবসময়ই আমাদের পরিবারের জন্য মূল্যবান এবং বিশেষ উৎসব। ওই দিনটি আমরা পরিবারের সবাই একসঙ্গে কাটাই। আমার বোন ফাতিমা রহমান কে এম মিউজিক স্কুলের পরিচালক ঈদের দিন সকালে আমাদের বাসায় চলে আসে। ওই দিন আমাদের বাড়িতে আলাদা বাবুর্চি দিয়ে বিরিয়ানি রান্না করা হয়। এখনো শিশুদের মতো আমি এবং আমার বোন বিরিয়ানি রান্না দেখি এবং কি করে এত সুস্বাদু হয় এ নিয়ে গবেষণা করি।’ এভাবেই সারা দিন পরিবারের সঙ্গে সময় কাটান এ আর রহমান। বাড়িতে মিষ্টি জাতীয় নানা খাদ্য রান্না হয় বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ভারতীয় টেনিস তারকা সানিয়া মির্জার কাছে ঈদের আনন্দ যেন বহু পদের খাওয়া-দাওয়ার মধ্যেই। তবে ঈদ উদযাপনকে তিনি আন্তরিকতা এবং বিশ্বাসের উদযাপন বলতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। আর খাদ্যপ্রীতির বিষয়টি তো নিজেই টুইট করে জানিয়ে দেন। ভক্তদের উদ্দেশে সানিয়া মির্জা বলেন, ‘সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা এবং ঈদ মোবারক। অনেক কিছু খাব।’

বলিউডের অমুসলিম তারকারাও কিন্তু ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে ভুল করেন না। ঈদের আনন্দে যেন সবাই আত্মহারা হয়ে উঠেন। এ তালিকায় রয়েছেন বলিউড শাহেনশা অমিতাভ বচ্চন, রানী মুখার্জি, কাজল, বিপাশা বসু, অনুপম খের, মাধুরী দীক্ষিত এবং প্রিয়াঙ্কা চোপড়া।

বলিউডের দেশি গার্ল প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে এখন আর শুধুমাত্র অভিনেত্রী বলা যাবে না। বলিউড পাড়ায় উজ্জ্বল উপস্থিতির পাশাপাশি সম্প্রতি গানের ভুবনেও আলো ছড়াচ্ছেন প্রিয়াঙ্কা চোপড়া। প্রিয়াঙ্কা মনে করেন, ‘জীবনে আমরা কী পেলাম, আর কী পেলাম না এটি অনুধাবনের সবচেয়ে উপযুক্ত সময় হলো ঈদ।’ পাশাপাশি তিনি সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানাতেও ভোলেননি।

যেকোনো অনুষ্ঠানে সবাইকে টুইট করে শুভেচ্ছা জানাতে ভোলেন না বঙ্গ বিউটি বিপাশা বসু। আর ঈদ হলে তো কথাই নেই। শুধু শুভেচ্ছা জানিয়েই নয়, মুসলিম বন্ধুদের বাড়িতে দাওয়াত খেতে চলে যান বিপাশা।

লাস্যময়ী মাধুরী দীক্ষিত অবশ্য ঈদের খুশিতে সবাইকে টুইট করে শুভেচ্ছা জানিয়ে ক্ষান্ত থাকেন। তবে কোনো ঈদ পার্টির দাওয়াত পেলে পুরো পরিবার নিয়ে হাজির হন মাধুরী।

বিগ বি অমিতাভ বচ্চন অন্য আর দশটা উৎসবের মতো ঈদেও টুইট করে শুভেচ্ছা জানাতে ভোলেন না। সালমানের বাড়ির পার্টিতে অমিতাভকে দেখা না গেলেও শাহরুখের বাড়িতে পুরো পরিবার নিয়ে যেতে ভুল করেন না অমিতাভ। সাধারণত ঈদের রাতে জয়া বচ্চন, ছেলে অভিষেক এবং পুত্রবধূ ঐশ্বরিয়াকে নিয়ে ঈদের পার্টি উপভোগ করতে বেরিয়ে পড়েন অমিতাভ বচ্চন।



(পরের সংবাদ) »



মন্তব্য চালু নেই