মেইন ম্যেনু

বন্দি স্বামীর মুক্তিতে জঙ্গিদের কাছে স্ত্রীর আকুতি

জঙ্গি গোষ্ঠি ইসলামি স্টেটের হাতে বন্দি ব্রিটিশ ট্যাক্সিচালক অ্যালান হেনিংকে ছেড়ে দেয়ার জন্য আকুতি জানিয়েছেন স্ত্রী বারবারা হেনিং। একটি মুসলিম দাতব্য সংস্থার জন্য মানবিক ত্রাণ বোঝাই গাড়ি নিয়ে সিরিয়া সফরের সময় গত বছর আটক হয়েছিলেন ৪৭ বছরের হেনিং।গত দশ মাস ধরে তিনি জঙ্গিদের হাতে আটক রয়েছেন।

এক সপ্তাহ আগে জঙ্গিরা ব্রিটিশ নাগরিক ডেভিড হেইনসকে হত্যার যে ভিডিও চিত্র প্রকাশ করেছে সেখানেই শেষবারের মত দেখা গেছে দু সন্তানের জনক অ্যালান হেনিংকে। সম্প্রতি তাকে ছেড়ে দেয়ার জন্য আইএসের কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছেন বারবারা। শনিবার যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে এ কথা জানা যায়।

ওই আবেদনে বারবারা স্বামী অ্যালানকে একজন শান্তিকামী ও নিস্বার্থ মানুষ হিসেবে উল্লেখ করে বলেন,‘সিরিয়ার মুসলিম সহকর্মী এবং বন্ধুদের জন্য যুক্তরাজ্যে পরিবার পরিজনকে ছেড়ে ত্রাণ নিয়ে গিয়েছিলেন ট্যাক্সিচালক অ্যালান। তিনি যে অ্যাম্বুলেন্সটি চালাচ্ছিলেন সেটি ভরা ছিল খাদ্য আর পানি দিয়ে।ত্রাণ পৌঁছানো ছাড়া সিরিয়ায় যাওয়ার তার আর কোনো উদ্দেশ্য ছিল না।স্রেফ সমবেদনা থেকেই এতবড় ঝুঁকি নিয়েছিলেন তিনি।’

বারবারা আইএস যোদ্ধাদের উদ্দেশ্য করে আরো বলেন,‘যারা অ্যালানকে আটকে রেখেছে তাদের কাছে আমার আবেদন, তারা যেন আমার এ বার্তার উত্তর দেন এবং অনেক দেরি হওয়ার আগেই যেন তারা আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। ’

রোববার বিবিসি এবং আল জাজিরায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, বারবারা এর আগেও আইএসের যোদ্ধাদের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেছিলেন। তিনি তাদের উদ্দেশে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বার্তাও পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু তারা এতে সাড়া দেয়নি।

বারবারা তার নতুন বার্তায় আএসকে লক্ষ্য করে বলেন,‘আশা করছি, ইসলামি স্টেটের লোকজন আমার এ প্রার্থণা হৃদয়াঙ্গম করবে এবং আমার স্বামী অ্যালান হেনিংকে ছেড়ে দিবে।’

ট্যাক্সিচালক হেনিং তার পরিবার পরিজন নিয়ে ইংল্যান্ডের মেনচেস্টার এলাকায় বসবাস করতেন। তিনি তার মুসলিম বন্ধুদের সঙ্গে ‘এইড ফর সিরিয়া’ নামের এক দাতব্য সংস্থার সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন। এই সংস্থার ত্রাণ নিয়েই গত দশ মাস আগে সিরিয়া রওয়ানা হয়েছিলেন তিনি।

মিসেস হেনিংয়ের এই আবেদনের মাত্র একদিন আগে ইউটিউবে অ্যালানকে ছেড়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছিলেন যুক্তরাজ্যের দুই প্রখ্যাত আলেম।






মন্তব্য চালু নেই