মেইন ম্যেনু

ফের অপেক্ষমাণ নিজামীর রায়

জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামীর মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার রায় ঘোষণা করা হলো না মঙ্গলবার। মামলাটির রায় অপেক্ষমাণ রাখা হলো।

দুপক্ষের শুনানি শেষে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার কিছু আগে এ আদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১।

মঙ্গলবার এ মামলার রায় ঘোষণার জন্য দিন ধার্য থাকলেও আসামি মতিউর রহমান নিজামী অসুস্থ হয়ে পড়ায় আদালতে তার উপস্থিত হতে না পারার কারণ দেখিয়ে এ আদেশ দিলেন বিচারক।

এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো অপেক্ষমাণ রাখা হলো জামায়াতের আমিরের মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার রায়।

আদালতের আদেশ শেষে এ মামলার প্রসিকিউটর মোহাম্মদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজ আমরা রায়ের জন্য প্রস্তুত ছিলাম। এ জন্য আদালতে এসেছি। নিজামীর মেডিকেল প্রতিবেদন আমরা আদালতে দেখিয়েছি এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল আইন ১৯৭৩ এর ধারা ৪৩ (ক) ও ৪৬ (ক) এর উপরে শুনানি করেছি। এরপর আমাদের দেশের এবং সমাজের ন্যায় বিচারর স্বার্থে আদালতে মামলার রায়ে নিজামীর মৃত্যুদণ্ড চেয়েছি। কিন্তু নিজামী অসুস্থ হয়ে পড়ায় বিচারক মামলাটি অপেক্ষমাণ রেখেছেন।’

তিনি আরো বলেন, ‘উচ্চ রক্তচাপের কারণে জেল কর্তৃপক্ষ তাকে আদালতে উপস্থিত করতে অপারগতা প্রকাশ করেছে। আদালত যখনই তার শারীরিক সুস্থতা সম্পর্কে নিশ্চিত হবেন তখনই রায়ের জন্য দিন ধার্য করবেন।’

যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তত তাড়াতাড়ি এ মামলায় রায় দেয়া হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

আসামিপক্ষের আইনজীবী তাজুল ইসলাম বলেন, ‘আজ রায়ের জন্য আমরা আদালতে উপস্থিত হয়েছি। কিন্তু জেল কর্তৃপক্ষ চিঠি দিয়ে জানিয়েছে, সোমবার রাত ১টা ২০ মিনিটে উচ্চ রক্তচাপের কারণে অসুস্থ হয়ে পড়েন নিজামী। এ অবস্থায় তাকে আদালতে স্থানান্তর করা সম্ভব নয়। আমাদের আইনের ৪৩ (ক) ধারার উপর শুনানি করেছি। এ ধারায় বলা আছে- অভিযুক্ত ব্যক্তি যদি পলাতক থাকেন বা জেনে থেকেও ট্রাইব্যুনালে আসতে অস্বীকৃতি জানান অথবা দীর্ঘদিন যাবৎ অসুস্থ থাকেন তাহলে তার অনুপস্থিতে রায় কার্যকর করা যেতে পারে। নিজামী যুক্তি উপস্থাপনকালে নিয়মিত আদালতে হাজির হয়েছেন। এবং তার শারীরিক অবস্থা হঠাৎ করে খারাপ হওয়ার কারণে তিনিএ বিধানের মধ্যে পড়বেন না। তাই নিজামীর অনুপস্থিতে তার এ মামলা রায় দেয়া সম্ভব না।’

নিজামীর অসুস্থতার বিষয়ে তাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমাদের কাছে বিশেষ কোনো তথ্য নেই।






মন্তব্য চালু নেই