মেইন ম্যেনু

ফখরুলের সামনেই সোহেলকে ধমকালেন আব্বাস

মানববন্ধন কর্মসূচিতে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সামনেই ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলকে ধমকিয়েছেন আহ্বায়ক মির্জা আব্বাস।

মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক গুম দিবস উপলক্ষে নয়াপল্টনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট আয়োজিত মানববন্ধন নেতাদের বক্তব্য শুরুর আগে নেতাদের নাম ঘোষণা ও তাড়াতাড়ি বক্তব্য দেয়াকে কেন্দ্র করে এ ধমক দেন তিনি। এসময় ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুলের উপরও কিছুটা রুষ্ঠ হন আব্বাস।

মানববন্ধনের বক্তব্য শুরুর আগে ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল কর্মসূচিতে উপস্থিত ২০ দলীয় জোট নেতাকর্মীদের নাম মাইকে বলছিলেন। কিন্তু তিনি মির্জা আব্বাসের নাম বলতে ভুলে যান। তখনই সোহলের উপর ক্ষুদ্ধ হন আব্বাস।

তখনই মির্জা ফখরুল সোহেলকে বলেন, ‘মির্জা আব্বাস ভাইয়ের নাম বলোনি, তার নাম বলে দাও।’

সোহেল তখন বলেন, ‘আমি আসলে একটি নাম বলতে ভুলে গেছি, আরো উপস্থিত আছেন ঢাকা মহানগর আহ্বায়ক ও স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।’ মির্জা আব্বাসের নাম বলার সময় সোহেল তোতলামি করছিলেন।

এর আগেও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিচারপতিদের অভিশংসনের প্রতিবাদে আয়োজিত সমাবেশে আব্বাসের নাম বলার সময় তোতলামি করেন সোহেল।

এসময় মানববন্ধনে মির্জা আব্বাস প্রধান অতিথির কাছ থেকে বেশ দূরে অবস্থান করছিলেন। পরে তিনি মির্জা ফখরুলের ডান পাশে আসেন। আর বা পাশে ছিলেন সোহেল। এরপর তাড়াতাড়ি মানববন্ধন শেষ করার জন্য সোহেলকে তাগাদা দেন আব্বাস। সোহেল তা না করে সহ-দপ্তর শামীমকে মাইক দিলে তিনি ২০ দলের শরিক নেতাদের নাম বলতে থাকেন। এরপর সোহেল বক্তব্য দেয়ার জন্য জামায়াতের প্রচার বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক তাসনিম আলমের নাম ঘোষণা করেন। সে মুহূর্তেই আব্বাস ক্ষেপে যান।

তখন মির্জা ফখরুলের সামনেই মির্জা আব্বাস ক্ষুদ্ধ হয়ে সোহেলকে বলেন, ‘তুমি কি শুরু করছো, তোমাকে না বলছি তাড়াতাড়ি শেষ করতে।’ তখন মির্জা ফখরুল সবাইকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান।

এসময় আব্বাস ক্ষুদ্ধ হয়ে যুগ্ম মহাসচিব মো. বরকত উল্লাহ বুলুকে বলেন, ‘এই ছেলেটা আমারে ডুবাবে, চিন্তা করছেন আমরা নামটা বলতে ভুলে গেছে।’

এদিকে মানববন্ধনে অংশ নেয়া নেতাকর্মীরা বলেন, মির্জা আব্বাস মানববন্ধনে অংশ নিলেও শুরুতে তার নাম ঘোষণা করা হয়নি। পরে মির্জা ফখরুল বলে দেয়ার পর তার নাম ঘোষণা করা হয়। পরবর্তীতে বক্তব্য দেয়ার জন্য মির্জা আব্বাসের নাম ঘোষণা না করে আগে জামায়াত নেতার নাম ঘোষণা করা হয়। যা আব্বাসকে তুচ্ছতাচ্ছিল করার সামিল। তাই তিনি ক্ষেপে গিয়ে সোহেলকে ধমক দেন।

উল্লেখ্য, সোমবার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় ফখরুল ও সোহেলকে জড়িয়ে কে বা কারা লিফলেট বিতরণ করে। মির্জা ফখরুলকে সেই লিফলেট পড়তেও দেখা গেছে।






মন্তব্য চালু নেই