মেইন ম্যেনু

প্রচারণায় ব্যস্ত সময় কাটালেন আফরোজা আব্বাস ও তাবিথ

টানা ১৮দিন গণসংযোগ, লিফলেট বিতরণ, ভোটারদের কাছে ভোট ও দোয়া চাওয়ায় ব্যস্ত ছিলেন ঢাকা সিটি দক্ষিণে বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাসের স্ত্রী মিসেস আফরোজ আব্বাস। তবে প্রচারণার শেষ দিনে রবিবার ব্যস্ততার মধ্যে সময় কাটে তার। দোয়া চাওয়ার জন্য সকাল ৮টার দিকে তিনি চলে যান বরেণ্য আইনজীবী ব্যারিস্টার রফিকুল হকের পল্টনের বাসায়।

এ সময় মিসেস আফরোজা আব্বাসের সঙ্গে ছিলেন ড্যাব নেতা ডা. রফিকুল ইসলাম। এরপর মিসেস আফরোজা আব্বাস আরামবাগ ও মতিঝিল পাড়ায় গণসংযোগের জন্য বেরিয়ে যান। সকাল ৯টার দিকে মিসেস আফরোজা আব্বাস গণসংযোগ শুরু করেন আরামবাগ নটরডেম কলেজ সংলগ্ন চৌরাস্তা থেকে এসময় তার সঙ্গে ছিলেন মহিলা দল নেত্রী ও সাবেক সংসদ সদস্য শিরিন সুলতানা, তাঁতীদল সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, গীতিকার নাহিদ নজরুল, কাজী আমির খসরু, মেহেদী আলম খান, নাসিমা আক্তার কেয়া, শাহিনুর আক্তার স্মৃতি, মুস্তাকিন প্রমুখ।

পরে আফরোজা আব্বাস আরামবাগ, মতিঝিল, দিলকুশা, দৈনিক বাংলা মোড় পল্টনসহ বেশ কিছু এলাকায় গণসংযোগ করেন।

আফরোজা আব্বাস এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘ভোটকেন্দ্রে ভোট কারচুপি করতে দেওয়া হবে না এবং নগরবাসী ভোট ডাকাতদের প্রতিরোধ করবে। এরা বুঝে গেছে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে তাদের ভরাডুবি নিশ্চিত। তাই এখন মরিয়া হয়ে আমাদের কাউন্সিলর প্রার্থীদের গ্রেফতার করছে, আমাদের নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর করছে পোস্টার ব্যানার, প্রচারণার মাইক ছিনিয়ে নিচ্ছে, হয়রানি করছে।’

এদিকে, রবিবার দুপুরে ২২ নম্বর ওয়ার্ড হাজারীবাগ বাজার এলাকায় জণসংযোগ ও মগ মার্কার লিফলেট বিতরণকালে ছাত্রদলকর্মী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আব্দুল জলিলকে কুপিয়ে মারাত্মক জখম আওয়ামী সন্ত্রাসীরা।

হান্নান শাহের সংবাদ সম্মেলন : রবিবার দুপুরে মির্জা আব্বাসের শাহজাহানপুরের বাসভবনে ঢাকা দক্ষিণ নির্বাচনে প্রধান সমন্বয়ক বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

তিনি বলেন, ‘সরকার এই সময়ের মধ্যে সব প্রার্থীদের জন্য সমান সুযোগ দিতে ব্যর্থ হয়েছে। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করতে পারেনি। বরং আমাদের প্রার্থী ও প্রার্থী সমর্থিত নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করেছে, নির্বাচনী প্রচার ক্যাম্প ভাঙচুর করেছে, বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুলিশি তল্লাসি চালানো হয়েছে মোট কথা পুরো নির্বাচনী এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়েছে। সরকার পরিকল্পিতভাবে এ সব অপতৎপরতা চালিয়েছে যাতে ভীত সন্ত্রাসন্ত হয়ে ভোটারগণ ভোট কেন্দ্রে না যায়। আর এই সুযোগে সরকার প্রশাসনের সহযোগিতায় ভোট কারচুপি নিজেদের বিজয় ঘোষণা করে দিতে পারে।’

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক মন্ত্রী আলতাফ হোসেন চৌধুরী, আবদুল হাই, যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সাবেক সংসদ সদস্য নাজিম উদ্দিন আলম, মেজর (অব.) মিজানুর রহমান, যুবদল সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট আবদু সালাম আজাদ, নির্বাচনী প্রেস উইংয়ের সাংবাদিক মাহমুদ হাসান, নাহিদ নজরুল, ওয়াহিদ বিন ইমতিয়াজ বকুল, মো: নাননু মীর প্রমুখ।

শ্রমিক দলের গণসংযোগ : জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল ঢাকা মহানগরের সভাপতি কাজী আমীর খসরুর নেতৃত্বে আজ দিলকুশা, ফকিরাপুল, দৈনিকবাংলা মোড়, মতিঝিলসহ বিভিন্ন এলাকায় মির্জা আব্বাসের পক্ষে নির্বাচনী গণসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীগণ গণসংযোগে অংশগ্রহণ করেন। শ্রমিক দলের গণসংযোগে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শ্রমিক দল নেতা জাফর সাদেক, মো. বেলাল হোসেন রিপন, মো. ইব্রাহীম, নুরু, মো. জহির, মোস্তাকিন ও মামুন প্রমুখ।

জাসাসের গণসংযোগ : আজ বেলা ১১টায় বিএনপির কেন্দ্রিয় সাংস্কৃতিক সম্পাদক গাজী মাজহারুল আনোয়ার ও জাসাস সভাপতি আব্দুল মালেকের নেতৃত্বে ঢাকার ইসলামপুর, বাবুবাজার, মায়াকটরাসহ পুরানা ঢাকার বেশি কিছু এলাকায় মির্জা আব্বাসের পক্ষে নির্বাচনী গনসংযোগ ও লিফলেট বিতরণ করা হয়।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন চিত্রনায়ক উজ্জল, বাবুল আহমেদ, সালাউদ্দিন ভূইয়া শিশির, জাহাঙ্গীর আলম রিপন, ডা. আরিফুর রহমান, জাকির হোসেন রোকন, কেয়া চৌধুরী, হোসনে আরা নাজ, নায়িকা সাহেলা, মাহফুজ, শাহীনুর, অ্যাডভোকেট রুবেল, শাহীন প্রমুখ।

জাতীয়তাবাদী যুব ফাউন্ডেশনের গণসংযোগ : রবিবার জাতীয়তাবাদী যুব ফাউন্ডেশনের নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক আ. ক. ম রুহুল আমিনের নেতৃত্বে হাজারীবাগ, কুলাইনমহল, মনেশ্বর, বাড্ডানগর, নবাবগঞ্জসহ বেশ কিছু এলাকায় গণসংযোগ করা হয়।

এ সময় তার সাথে ছিলেন আরজু, মামুদ, আয়েশা, নাসির ও শহীদ প্রমুখ। তারা সকাল ৯টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত বিভিন্ন বাড়িতে গিয়ে ভোটারদের কাছে মির্জা আব্বাসের পক্ষে লিফলেট বিতরণ করেন ও মগ মার্কায় ভোট চান।

গণসংযোগে ব্যরিস্টার মওদুদ : শেষ দিনে সন্ধ্যায় প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের সঙ্গে গণসংযোগে যোগ দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

বনানী ও মহাখালী এলাকায় প্রচার অভিযানে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, ‘সুষ্ঠু নির্বাচন হলে তিন সিটিতেই জনগন জাতীয়তাবাদী সমর্থিত প্রার্থীকে বিজয়ী হবে।’

ভোট কারচুপি ও কেন্দ্র দখল ঠেকাতে ভোটার, দলীয় নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের মানুষকে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পাহারা বসানোর আহ্বান জানান তিনি।

এ গণসংযোগে বিএনপির সহ-ধর্ম বিষয় সম্পাদক জয়ন্ত কুমার কুণ্ডু উপস্থিত ছিলেন।






মন্তব্য চালু নেই