মেইন ম্যেনু

পাকিস্তানের ভরাডুবিকে ‘লজ্জাজনক’ বললেন রমিজ

১৬ বছর কোনো ধরনের ক্রিকেটেই পাকিস্তানের বিপক্ষে জয় ছিল না বাংলাদেশের। তবে এবার বহুল কাঙ্ক্ষিত সে জয়ের আক্ষেপ ঘুচেছে। আক্ষেপ ঘুচেছে ওয়ানডে সিরিজ জয়, এমনকি হোয়াইটওয়াশেরও। না না, হোয়াইটওয়াশ শব্দটা খুব একটা সুমধুর শোনায় না, এটাকে ‘বাংলাওয়াশ’ বলাই শ্রেয়! এরপর একমাত্র টি-টোয়েন্টিতেও পাকিস্তানকে নাস্তানাবুদ করে ছাড়েন টাইগাররা।

আর বাংলাদেশের কাছে পাকিস্তানের এমন অসহায় আত্মসমর্পণে সমালোচনা চলছেই। সমালোচনার শুরুটা ওয়ানডে সিরিজ হারের পর থেকেই। তবে বাংলাওয়াশের পর এর মাত্রা আরো বেড়ে যায়। পাকিস্তানের পার্লামেন্টেও এ নিয়ে তুমুল বিতর্ক হয় সরকার ও বিরোধী দলের মধ্যে। যেখানে পাকিস্তান দলের বাজে পারফরম্যান্সের জন্য সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করায় বিরোধী দল। পাকিস্তানের বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক ইমরান খান তো সরাসরি বোর্ডকর্তাদের দায়ী করেন।

এবার সমালোচনার এ মিছিলে যোগ দিলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন ক্রিকেটার রমিজ রাজাও। বাংলাদেশের কাছে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ ও টি-টোয়েন্টিতে হারা পাকিস্তান দলকে ‘দিকভ্রষ্ট জাহাজ’ বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। টাইগারদের কাছে পাকিস্তানের এমন ভরাডুবিকে ‘লজ্জাজনক’ বলে উল্লেখ করেন রমিজ। বর্তমানে পাকিস্তান তাদের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে খারাপ সময় পার করছে বলেও মনে করছেন তিনি।

রমিজ মনে করেন, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের (পিসিবি) সঠিক ‘দিকনির্দেশনার অভাবে’ই দল এমন হতাশাজনক পারফরম্যান্স করছে। ইএসপিএনক্রিকইনফো’কে রমিজ বলেন, ‘এখানে (পিসিবির) কোনো ভালো ধারণা ও দিকনির্দেশনা নেই। তারা সব পুরনো কৌশল আঁকড়ে ধরে রেখেছে- উইকেট হাতে রাখো এবং শেষ ১০ ওভারে কঠিন লড়াই করো। কোচিং স্টাফরা ’৮০ এবং ’৯০ দশকের কৌশল অনুসরণ করছে। আমি আশা করেছিলাম, এই পরিস্থিতির উন্নতি হবে কিন্তু নতুন কোচিং স্টাফরা নতুন কোনো নির্দেশনা দেননি।’

বাংলাদেশ সিরিজে পাকিস্তানের তরুণদের থেকে ভালো কিছু প্রত্যাশা করেছিলেন রমিজ। কিন্তু তরুণরা তার সে প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি। পাকিস্তানের প্রাক্তন এই ব্যাটসম্যান বলেন, ‘আমি খুবই উদ্বিগ্ন কারণ আমি আশা করেছিলাম কিছু তরুণ খেলোয়াড় এগিয়ে আসবে। কিন্তু তারা যথেষ্ট ভালো ছিল না।’

বর্তমানে আইপিএলে ধারাভাষ্যকার হিসেবে আছেন রমিজ। তিনি মনে করেন, খেলোয়াড়দের খেলায় মনযোগী করতে পিসিবির টি-টোয়েন্টি লিগ আয়োজন করা প্রয়োজন। সেটা দেশেই হোক কিংবা মধ্যপ্রাচ্যে। রমিজ বলেন, ‘এটা (টি-টোয়েন্টি লিগ) সত্যিই তাদের খেলায় মনযোগী হতে সাহায্য করবে এবং যেভাবে খেলা উচিত সে পথ দেখাবে। আমি আশা করি, পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড এটা নিয়ে কাজ করবে এবং একসময় তা বাস্তবের মুখ দেখবে। যদি এটা পাকিস্তানে না-ও হয় তাহলে মধ্যপ্রাচ্যে।’

পাকিস্তান দল এই মুহূর্তে মানসিক ও টেকনিক্যাল সমস্যার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে বলে মনে করছেন রমিজ। এর থেকে বেরিয়ে আসতে পাকিস্তানকে আগ্রাসী ক্রিকেট খেলা প্রয়োজন বলে মত দেন তিনি।

এদিকে আগামী ২৮ এপ্রিল থেকে দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান। টেস্ট সিরিজেও বাংলাদেশ এগিয়ে রাখছেন রমিজ। টেস্টে বাংলাদেশের জন্য ‘বড় সুযোগ’ থাকবে বলে মনে করছেন তিনি, ‘আমি মনে করি ইতিহাস তৈরির সুবর্ণ সুযোগ কাজে লাগাতে বাংলাদেশ বিন্দুমাত্র ছাড় দেবে না।’






মন্তব্য চালু নেই