মেইন ম্যেনু

দেবহাটা (সাতক্ষীরা) সংবাদ (২৩/৯/১৪)

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনে উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনও:
সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন দেবহাটা উপজেলা চেয়ারম্যান ও মু্িক্তযোদ্ধা কমান্ডার আলহাজ্ব আব্দুল গনি, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনম তরিকুল ইসলাম ও উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুব আলম খোকন। সোমবার সকাল ১১ টায় পরিদর্শনকালে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূনীতি ধরা পড়ে এবং তা নিরসনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানিয়েছেন। সূত্র মতে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বিভিন্ন অনিয়ম সম্পর্কে সরেজমিনে দেখা ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উভয়ই হাসপাতালটি পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে জানা যায়, হাসপাতালে দৈনিক প্রতি রোগী বাবদ সরকারী বরাদ্দ থাকে ১ শত ২৫ টাকা। কিন্তু রোগীদের যে খাবার পরিবেশন করা হচ্ছে তা অনেক নিন্মমানের। এছাড়া হাসপাতালের ল্যাবে রোগীদের যে পরীক্ষা নিরীক্ষা করা হয় সেখানে অনেক অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। সরকারী টাকার যে হিসাব পাওয়া যায় তাতে অনেক দূর্নীতি করা হয় বলে প্রাথমিকভাবে প্রতিয়মান হয়। এছাড়া ঔষধ সরবরাহ, বিভিন্ন স্বাস্থ্য সহকারীদের কাছে ঔষধ বন্টন, হাসপাতালের জনবল সঙ্কট, এম্বুলেন্সের ড্রাইভারের বিভিন্ন অনিয়ম সহ নানাবিধ বিষয়ে অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনম তরিকুল ইসলাম বলেন, প্রাথমিকভাবে খাবার পরিবেশন ও পরীক্ষা নিরীক্ষার বিষয় সহ অন্যান্য বিষয়ে যে অনিয়মগুলো পরিলক্ষিত হয়েছে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আব্দুল গনি বলেন, সরকার স্বাস্থ্য সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে দিতে পর্যাপ্ত ঔষধ সরবরাহ, চিকিৎসক ও নার্স নিয়োগ সহ বিভিন্ন কাজ করে চলেছে। কিন্তু যদি কোন অসাধু চক্র সরকারের সেই সুনাম নষ্ট করতে চায় তবে তাদের বিরুদ্ধে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। এলাকাবাসী এই ধরনের পরিদর্শনের জন্য উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন এবং সাথে সাথে যাতে দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযধ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয় সেজন্য কর্মকর্তাদের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। পরিদর্শনের সময় সাংবাদিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

২ জামায়াত কর্মী ও ১ জুয়াড়ী আটক:
দেবহাটা থানা পুলিশের অভিযানে ২ জন জামায়াত কর্মী ও জুয়া খেলার সময় জুয়ার আসর থেকে ১ জন জুয়াড়ী আটক হয়েছে। আটক জামায়াত কর্মীর একজন হলেন উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামের মোজাম্মেল হোসেনের ছেলে মোমিনুল ইসলাম (৩৬) ও অপরজন হলেন উপজেলার সখিপুর গ্রামের শামছুর রহমানের ছেলে রুহুল আমিন (৪৫)। মোমিনুলকে এস.আই মেজবাহ উদ্দীন রবিবার সকাল ৯ টার দিকে গাজীরহাট বাজার এলাকা থেকে এবং রুহুল আমিনকে এস.আই শরীফ মিয়াজী সখিপুর এলাকা থেকে সকাল সাড়ে ৯ টার দিকে গ্রেফতার করেন। তাদেরকে মামলায় গ্রেফতারপূর্বক আদালতে প্রেরন করা হয়েছে। এছাড়া শনিবার রাত ১১ টার দিকে থানার এ.এস.আই মদন মোহন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার রামনাথপুর গ্রামে অভিযানে চালিয়ে জুয়ার আসর থেকে উপজেলার রামনাথপুর গ্রামের মৃত কার্তিক সরকারের ছেলে অজয় সরকার (৫৮) কে গ্রেফতার করেন। এসময় বাকী ৬ জন জুয়াড়ী পালিয়ে যায়। এ ব্যাপারে এ.এস.আই মদন মোহন বাদী হয়ে দেবহাটা থানায় জুয়া আইনের ১৮৬৭ সালের প্রকাশ্যে জুয়া আইনের ১১ ধারায় তাস দ্বারা টাকার বিনিময়ে জুয়া খেলার অপরাধ আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং- ১৩, তারিখ- ২১/০৯/২০১৪। দেবহাটা থানার ওসি আশরাফ হোসেন জানান, দেবহাটা থানা এলাকা থেকে মাদক, জুয়া ও সন্ত্রাসমুক্ত করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।






মন্তব্য চালু নেই