মেইন ম্যেনু

বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি

তারেকের নামে ১১ জেলায় ১৩ মামলা, পরোয়ানা ৪

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে এক দিনেই দেশের ১১ জেলার আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহ ও মানহানির ১৩ মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪টিতে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি করেছেন আদালত।

আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

গোপালগঞ্জ: বঙ্গবন্ধুকে ‘রাজাকার’ বলায় বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় গ্রেপ্তারি পরয়ানা জারি করেছেন গোপালগঞ্জের আদালত।

রোববার গোপালগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল হামিদ বাদী হয়ে জেলার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. মতিয়ার রহমানের আদালতে মানহানির মামলা দায়ের করলে বিচারক তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

চট্টগ্রাম: একই অভিযোগে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়েছে চট্টগ্রামের আদালতেও।

রোববার চট্টগ্রাম মুখ্য মহানগর হাকিম মশিউর রহমান চৌধুরীর আদালতে বাশঁখালী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শিহাবুল হক শিকদার বাদী হয়ে মামলাটি করেন। এর আগে ১৮ ডিসেম্বর এ আদালতে তার বিরুদ্ধে আরও একটি রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়।

সিলেট: মানহানিকর ও রাষ্ট্রদ্রোহমূলক বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রোববার দুপুর ১২টায় মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রাহাত তরফদার বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।
 
বগুড়া: বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করায় বগুড়াতেও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের হয়েছে।

জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাশরাফি হিরো রোববার বগুড়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-২ এ মামলাটি দায়ের করেন। বিচারক ফেরদৌস ওয়াহিদ মামলা গ্রহণ করে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ: একই অভিযোগে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ ও মানহানির পৃথক দু’টি মামলা হয়েছে কিশোরগঞ্জের আদালতে। এর মধ্যে একটিতে তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

দুপুরে কিশোরগঞ্জের ১ নং জুডিশিয়াল আদালতে এ দু’টি মামলা দায়ের করেন কিশোরগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শফিকুল গণি ঢালী লিমন।

ঝিনাইদহ: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ‘রাজাকার’ বলে কটূক্তি করায় ঝিনাইদহে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেছে জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক রানা হামিদ।

রোববার দুপুরে ঝিনাইদহ বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আমলী আদালতে তিনি মামলাটি দায়ের করেন।

লক্ষ্মীপুর: একই অভিযোগ এনে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দু’টি মামলা দায়ের হয়েছে লক্ষ্মীপুরের আদালতে।

রোববার জেলা অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শাহাদাত হোসেন শরীফ ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য চৌধুরী মাহামুদুন নবী সোহেল বাদী হয়ে পৃথক মামলা দায়ের করেন।

Tarique Rahman তারেকের নামে ১১ জেলায় ১৩ মামলা, পরোয়ানা ৪ভোলা: বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করার অভিযোগে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ভোলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছে।

রোববার দুপুরে জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিব সিকদার বাদী হয়ে জেলার চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে মামলা দায়ের করলে আদালত তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

চুয়াডাঙ্গা: একই অভিযোগ এনে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে চুয়াডাঙ্গায়ও মানহানির মামলা দায়ের করেছে জেলা ছাত্রলীগ।

রোববার বেলা ১২টার দিকে ছাত্রলীগ সভাপতি শরিফ হোসেন বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শেখ মো. আমিনুল ইসলামের আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

ময়মনসিংহ: তারেক রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছে ময়মনসিংহের আদালতেও।

একই অভিযোগে রোববার বিকেলে ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বাদী হয়ে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট কোর্টে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করলে আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

রাঙামাটি: বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করায় তারেক রহমানের বিরুদ্ধে রাঙামাটিতেও মামলা হয়েছে।

রোববার দুপুরে রাঙামাটির চীফ জুডিশীয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-৩ এর বিচারক আইরিন পারভীনের আদালতে এ মামলা দায়ের করেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহ এমরান রোকন।

প্রসঙ্গত, ৪৪তম বিজয় দিবস উপলক্ষে ১৫ ডিসেম্বর ইস্ট লন্ডনের দ্যা অট্রিয়াম অডিটরিয়ামে যুক্তরাজ্য বিএনপির আটদিনের অনুষ্ঠানমালার সপ্তম দিনের সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তারেক রহমান বলেছিলেন, ‘আওয়ামী লীগ দাবি করে তাদের দল নাকি মুক্তিযুদ্ধের দল অথচ চোরের দল চাটার দল আখ্যা দিয়ে শেখ মুজিব নিজেই আওয়ামী লীগকে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছেন। এমন একটি কাজ করার জন্য তাহলে তো শেখ মুজিবই বড় ‘রাজাকার’।’

তিনি আরও বলেছিলেন, ‘বাস্তবতা হলো, আওয়ামী লীগ মুক্তিযুদ্ধকালীন দল বটে তবে মুক্তিযুদ্ধের দল নয়। এ দলের অধিকাংশ নেতাই মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যক্ষ অংশ নেননি।’

এমন মন্তব্য করায় দেশের বিভিন্ন আদালতে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলাসহ মানহানির একাধিক মামলা হয়। গ্রেপ্তারি পরোয়ানাও জারি হয় বেশ কয়েকটিতে।






মন্তব্য চালু নেই