মেইন ম্যেনু

গরুর মাংস বন্ধ করা নিয়ে নরেন্দ্র মোদিকে চ্যালেঞ্জ অখিলেশ যাদবের!

বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ বলেছিলেন, বিজেপি যদি উত্তরপ্রদেশে ক্ষমতায় আসে তবে রাজ্যের সব কসাইখানা বন্ধ করে দেবেন। জবাবে রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদবের চ্যালেঞ্জ, ক্ষমতা থাকলে বিদেশে গরুর মাংস রফতানি বন্ধ করে দেখাক নরেন্দ্র মোদি সরকার। খবর এবিপির।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহকে চ্যালেঞ্জ করে অখিলেশের মন্তব্য, দিল্লি ফিরে গিয়ে মাংস রফতানি বন্ধ করে দেখান ওরা। কসাইখানাগুলোকে ভর্তুকি সহ যেসব সুযোগসুবিধে দেওয়া হয়, সে সবও এই মুহূর্তে বন্ধ করা হোক।

বিজেপির দীর্ঘদিনের অভিযোগ, সমাজবাদী দলের প্রশ্রয়ে উত্তরপ্রদেশে গোমাংসের কারবারে বাড়বাড়ন্ত হয়েছে। ২০১৪ সালে লোকসভা ভোট প্রচারের সময়েও মোদি বিগত সরকারকে কটাক্ষ করে বলেন, তাদের জন্য বিদেশে মাংস রফতানি এভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। কৃষি ও খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ বিভাগ জানাচ্ছে, ২০১৫-১৬ সালে ৩০,১৩৭ কোটি টাকার পশুজাত পণ্য রফতানি হয়েছে দেশ থেকে। তার মধ্যে শুধু মোষের মাংসই রফতানি হয়েছে ২৬,৬৮১.৫৬ কোটি টাকার।

এ নিয়ে অমিত শাহকে কটাক্ষ করে অখিলেশ বলেছেন, চামড়া নিষিদ্ধ করে তার খড়ম পরা উচিত। যে ব্যবসায় লাভ বেশি, তাই তো উন্নতি করবে। কসাইখানা থেকে মাংস যায় কোথায়, তার থেকে মাংস রফতানিই বন্ধ করে দেওয়া হোক না।

পশুজাত পণ্য থেকে ওষুধ তৈরি হয় বলেও দাবি করেছেন অখিলেশ। আর সে সব ওষুধ কোম্পানির বেশিরভাগেরই ঠিকানা মোদি-শাহর রাজ্য গুজরাটে। তাহলে সেই ওষুধ কোম্পানিগুলিও বন্ধের ডাক দিয়েছেন তিনি।

তথ্য বলছে, দেশের মধ্যে উত্তরপ্রদেশেই সর্বাধিক ২৮ শতাংশ মোষের ব্যবসা হয়। এখানে কসাইখানার সংখ্যা দেশে দ্বিতীয়, মহারাষ্ট্রের পরেই। তবে অখিলেশের দাবি, তার রাজ্যে গোহত্যা হয় না। এ জন্য কঠোর আইন রয়েছে, যদি এমন কাজ কেউ করে, তবে তাকে শাস্তি দেওয়া হয়।






মন্তব্য চালু নেই