মেইন ম্যেনু

খানা খন্দে ভরে গেছে সাতক্ষীরা-খুলনা মহাসড়ক

সাতক্ষীরা খুলনা মহাসড়কটি খানা খন্দে ভরে গেছে। সড়কটির সাতক্ষীরা তালতলা এলাকা থেকে শুরু করে পাটকেলঘাটা পর্যন্ত শতাধিক বড়বড় গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। ছাল-চামড়া উঠে গেছে। মহাসড়কটি আস্ত নেই কোথাও। সাতক্ষীরা থেকে খুলনার চুকনগর ডুমুরিয়া পর্যন্ত একই অবস্থা। ঢেউ খেলানো রাস্তায় বাসে উঠলে যাত্রীদের মনে হয় দোলনায় দুলছে। সাতক্ষীরার বিনেরপোতা এলাকায় রাস্তাটি সংস্কারের নামে খুড়ে রাখা হয়েছে কয়েক মাস আগে। কিন্তু মহাসড়কটি সংস্কারে নিয়োগকৃত ঠিকাদার যেনো উধাও হয়ে গেছে। মহাসড়কটি খুড়ে রাখার কারণে জনদূর্ভোগ চরমে পৌছে গেছে। ধুলা – বালিতে অন্ধকার হয়ে নারী শিশু বৃদ্ধসহ সব বয়সের মানুষে জন্য কষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে সড়কটি। এ মহাসড়ক দিয়ে বাস ট্রাক সহ ভারি যান বাহন চলাচল চরম ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। শুধু ভারি যানবাহন নয়, ভ্যান ইজিবাইক টেম্পুসহ ছোট যানবাহন চলাচলও চরম ঝুঁকিপূর্ণ।
ট্রাক ও বাস চালকরা জানান, সড়কটি এখন মরণ ফাঁদ। একটু অসতর্ক হলেই নিশ্চিত দূর্ঘটনা অনেক সময় সতর্ক থাকলেও কাজ হচ্ছে না। পন্য বোঝাই ভারি যান বাহনের টাল সামলানো যাচ্ছে না। মহা সড়কটির বড় বড় গর্তে পড়ে উল্টে যাচ্ছে বাস- ট্রাক। যান্ত্রিক ত্র“টি তো লেগেই আছে। প্রতি নিয়ত বিকল হচ্ছে যানবাহন। এতে পণ্য আনা- নেওয়ার হয়রানির শিকার হতে হচ্ছে। যাত্রীরা তো হয়রানি হতে হতে নাকাল হয়ে পড়েছে।
চালকরা জানান, মহা সড়কটির তালতলা, বিনেরপোতা, ত্রিশ মাইল, আহসান নগর, ভৈরব নগর, শাকদাহসহ বিভিন্ন এলাকায় এখন বড় বড় গর্ত হয়েছে যে, এসব গর্ত পার হবার সময় মনে হয় ফুলছিরাত পার হচ্ছি। জীবনটা থাকে হাতের মুঠোয়। তাছাড়া সাতক্ষীরা- থেকে খুলনা পর্যণ্ত মহা সড়কটি আগা-মাথা ঢেউ খেলানো। এ সড়কে চলরে মনে হয় দোলনায় দোল খাচ্ছি।
সাতীরা সড়ক ও জনপদ বিভাগ সূত্র জানায়, সাতক্ষীরা- খুলনা মহাসড়কের তালতলা থেকে বিনেরপোতা পর্যন্ত ২ কিলোমিটার রাস্তা খুবই খারাপ। এরমধ্যে এক কিলোমিটার সড়কের সংস্কার স¤পন্ন হয়েছে। বাকী এক কিলোমিটার সড়কের কাজ বরাদ্দের অভাবে অসম্পন্ন আছে।
সূত্র আরো জানায়, মহাসড়কটির সাতক্ষীরা থেকে আঠারোমাইল পর্যন্ত সংস্কারে বর্তমান সরকার ২০ কোটি টাকার প্রকল্প গ্রহণ করে। প্রকল্পটির মেয়াদ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।
সড়ক ও জনপদ বিভাগের সহকারি প্রকৌশলী এম. আতিক উল্লাহ বলেন, বর্তমান সরকার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার আলোকে বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কাজ করছে। আশা করছি খুব শীঘ্রই এটি সম্পন্ন হবে।
সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক নাজমুল আহসান বলেন, আশা করছি চলতি অর্থ বছরেই এ রাস্তটি ১০০% ভালো হয়ে যাবে। এছাড়া সাতক্ষীরা-মুন্সিগঞ্জ সড়কের রাস্তারও রিপ্রেয়ারিং করা হবে।






মন্তব্য চালু নেই