মেইন ম্যেনু

ক্ষতস্থানে অ্যান্টিসেপ্টিক দিলে জ্বলে কেন?

দৈনন্দিন জীবনে যত সাবধানেই থাকুন না কেন, ছোটখাটো কাটাছেঁড়া হতেই পারে। হয়তো সবজি কাটতে দিয়ে আঙ্গুলের ডগায় কেটে গেল, অথবা পিনের খোঁচা লেগে ছোট্ট ফুটো হয়ে গেল। এমন সময়ে আমাদের দরকারে লাগেই অ্যান্টিসেপ্টিক ক্রিম অথবা লিকুইড। ক্ষতস্থানে অ্যান্টিসেপ্টিক দেওয়ার সাথে সাথেই প্রস্তুত হয়ে যান জ্বালাপোড়ার জন্য। কিন্তু উপকারি অ্যান্টিসেপ্টিক ক্ষতস্থানে দিলে জ্বলে কেন? সেটা কি ত্বকের জন্য ক্ষতিকর? চলুন দেখে নিই বিজ্ঞান কী বলে।

এই জ্বালাপোড়ার কারণ হলো ইথানল এবং হাইড্রোজেন পারক্সাইড, অনেক অ্যান্টিসেপ্টিকেই এই উপাদানগুলো থাকে। এই দুটো উপাদানই শরীরে এমন সব রিসেপ্টরকে উদ্দীপ্ত করে যারা জ্বলুনির অনুভূতি দেয়। এই তথ্য জানান জোসেফ গ্লাক, ম্যাসাচুসেটস এর মোমেন্টা ফার্মাসিউটিক্যালসের একজন অ্যানালিটিক্যাল কেমিস্ট।

ইথানল শরীরের ভ্যানিলয়েড রিসেপ্টর-১ (VR1) কে উদ্দীপ্ত করে, জানা যায় নেচার নিউরোসায়েন্স জার্নালে ২০০২ সালে প্রকাশিত এক গবেষণা থেকে। উচ্চ তাপ (৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো) অথবা কিছু কিছু রাসায়নিকের উপস্থিতিতে (যেমন মরিচে থাকা ক্যাপসিসিন) VR1 জ্বলুনির অনুভূতি দেয়। ইথানলের সংস্পর্শে এলে এই রিসেপ্টরের তাপমাত্রার সহ্যসীমা শরীরের তাপমাত্রার চাইতে কমে যায়, ফলে কম তাপমাত্রাতেই সে আপনার শরীরে জ্বালাপোড়ার অনুভূতি দিতে থাকে। সারা শরীরেই ট্রান্সিয়েন্ট রিসেপ্টর ভ্যানিলয়েড (TRPV) পরিবারের রিসেপ্টর থাকে, জানা যায় ২০০৫ সালে জার্নাল অফ জেনারাল ফিজিওলজিতে প্রকাশিত এক গবেষণায়।

হাইড্রোজেন পারক্সাইড আরেক ধরণের রিসেপ্টরকে উদ্দীপ্ত করে, যাকে বলা হয় ট্রান্সিয়েন্ট রিসেপ্টর পোটেনশিয়াল অ্যানকাইরিন ১ বা TRPA1। এর ব্যাপারে VR1 এর মতো এত বেশী কিছু জানা যায় না, তবে এই দুটো একইভাবে কাজ করে।

ভালো খবর হলো ইথানল এবং হাইড্রোজেন পারক্সাইড দুটোর ব্যবহারে এই জ্বলুনি হওয়াটা সাময়িক। শুধু তাই নয়, এই জ্বলুনি একেবারেই নিরীহ। এর কারণে আপনার কোনো ক্ষতি হচ্ছে না, শুধু রিসেপ্টর উদ্দীপ্ত হবার কারণে এই জ্বলুনি হয়।

সুত্র: লাইভ সায়েন্স






মন্তব্য চালু নেই