মেইন ম্যেনু

কীভাবে বুঝবেন প্রেমিক আপনাকে ধোঁকা দিয়ে একাধিক প্রেম করছে?

প্রেমের বন্ধন খুব পবিত্র একটি বন্ধন। দুজনের মনের মিলের একটি অপূর্ব বন্ধন। কিন্তু ইদানিং অনেকেই এই পবিত্র বন্ধনটিকে কুলষিত করে ফেলছেন। দুজনের এই বন্ধনের মাঝে নিয়ে আসেন তৃতীয় কিংবা চতুর্থ কাউকে। প্রেমের সম্পর্কে ধোঁকা দেয়ার নজির ইদানিং বেশ ভালোই চোখে পড়ে।

মেয়েদেরকে ছলনাময়ী বললেও প্রেমের সম্পর্কে ধোঁকা দেয়ার দিক থেকে ছেলেরাই বেশি এগিয়ে রয়েছেন। একই সাথে দুই তিনটি প্রেমের সম্পর্ক চালিয়ে যাওয়ার মতো ঘটনাও নেহায়েত কম নয়। সমস্যা হলো যারা এমনটি করেন তাদের দেখলে বোঝা যায় না যে তারা প্রেমের সম্পর্কে ধোঁকা দিতে পারেন। তাঁদের ভালমানুষের মত ব্যবহার এবং দারুণ ফ্লার্টিং কথাবার্তার ফাঁদে পা দিয়ে ফেলেন মেয়েরা। কিন্তু এদের চেনারও অনেক পদ্ধতি রয়েছে। জানতে চান কী সেই লক্ষণগুলো? চলুন তবে দেখে নেয়া যাক।
নিজেকে রহস্যময় হিসেবে উপস্থাপন করে

রহস্যময়তা মেয়েদেরকে অনেক আকর্ষণ করে। তাই এই ধরণের ছেলেরা নিজেকে অনেক রহস্যময় একজন হিসেবেই উপস্থাপন করবেন। আপনাকে সব সময়ে একটি ধাঁধার মধ্যে রাখবেন। তার চিন্তা ভাবনা এবং আচার আচরণ আপনি ঠিক মতো বুঝে উঠতে পারবেন না। অপরপক্ষে একজন সত্যিকারের প্রেমিক নিজের সম্পর্কে সব কিছুই জানিয়ে দিতে পছন্দ করেন। কোনো রহস্য রাখেন না।
বন্ধু বান্ধব এবং আত্মীয় স্বজন থেকে আপনাকে দূরে রাখে

যে ছেলেটি মন থেকে একজন মেয়েকে পছন্দ করবেন এবং ভালবাসবেন তার সব সময়ের চেষ্টা থাকবে নিজের বন্ধু বান্ধব ও আত্মীয় স্বজনের সাথে নিজের প্রেমিকার পরিচয় করিয়ে দিতে। কারণ তারা চান তার প্রেমিকা যেন তাদের সাথে ভালো করে মিশতে পারেন। কিন্তু আপনার প্রেমিক যদি আপনাকে নিজের বন্ধু বান্ধব ও আত্মীয়স্বজন থেকে দূরে রাখেন তবে বুঝে নেবেন নিশ্চয়ই কোনো খটকা রয়েছে।
আপনার সম্পর্কে খুব বেশি কিছু জানতে চান না

আপনি কোথায় যান, কী করেন, কার সাথে কথা বলেন এই সকল কিছু আপনার প্রেমিক যদি আপনাকে প্রশ্ন করে থাকেন তবে তাকে আপনি ডমিনেটিং স্বভাবের ভাববেন না মোটেও। এতে প্রকাশ পায় তিনি আপনার প্রতি দুর্বল বিধায় খোঁজখবর রাখেন। যে প্রেমিক এই কাজটি করেন না তারা আসলেই আপনাকে ভালোবাসেন কিনা একটু খতিয়ে দেখবেন।
একটি নির্দিষ্ট সময় পর ফোনে খুব বেশীক্ষণ কথা বলতে চাইবেন না

প্রেমিক প্রেমিকার মধ্যে বর্তমানে বেশিরভাগ সময় ফোনেই কথা হয়। যোগাযোগের বেশ বড় একটি মাধ্যম। কিন্তু আপনার প্রেমিক যদি আপনার সাথে একটি নির্দিষ্ট সময় পরে আর কথা বলতে না চান তবে এই ব্যাপারে ভেবে দেখবেন। এবং বেশিরভাগ সময় তার ফোন ওয়েটিং পাওয়া গেলে এবং আপনার প্রশ্নের উত্তরে প্রতিবারই বন্ধু বা আত্মীয়ের নাম নিলে ব্যাপারটি অবশ্যই লক্ষণীয়।
আপনার কাছে অনেক কিছুই গোপন করতে চাইবেন

নিজের প্রেমিকের প্রতিদিনের জীবন যাপন, কোথায় থাকেন, কী করছেন সম্পর্কে আপনার যদি খুব ভালো ধারনা না থাকে তবে আজই নিজের সম্পর্কের ব্যাপারে ভেবে দেখুন। তিনি কোথায় যাচ্ছেন, কী করছেন এই সকল প্রশ্নের উত্তর আপনি তার কাছ থেকে না পেলে অবশ্যই তা ভাববার বিষয়। কারণ যিনি আপনাকে ভালোবাসেন তিনি নিজেকে আপনার কাছে স্বচ্ছই রাখতে চাইবেন।






মন্তব্য চালু নেই