মেইন ম্যেনু

কলারোয়ায় অযোগ্য ব্যক্তিকে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের পায়তারা : বিভিন্ন দপ্তরে গণদরখাস্ত

জুলফিকার আলী, কলারোয়া (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধিঃ কলারোয়ায় বহুল প্রচারিত পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশ না করে গোপনে অযোগ্য এক প্রধান শিক্ষকে নিয়োগ দেওয়ার পায়তারায় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির এক অংশ শিক্ষা সচিবসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে গণদরখাস্ত করেছে। অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, কলারোয়া উপজেলার চান্দুড়িয়া কেসিজি ইউনাইটেড হাই স্কুলে দীর্ঘ দিন ধরে প্রধান শিক্ষকের পদটি খালি থাকায় ওই পদে একজন যোগ্য প্রধান শিক্ষক নিযোগ করা হবে। সে ক্ষেত্রে বহুল প্রচারিত দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশের নিয়ম থাকলেও স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাসান আজিজ আহম্মেদ গোপন বিজ্ঞাপনটি সাতক্ষীরার কাফেলা ও ভোরের ডাক পত্রিকায় প্রকাশ করে। যাহা কলারোয়াতে কোন ব্যক্তি ওই স্কুল নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে তাহা জানতে পারেনি। যার ফলে স্কুলের সহকারী শিক্ষক (শরীর চর্চা) আব্দুল ওয়াদুদ নিজে দরখাস্ত করেন এবং ম্যানেজিং কমিটি তার কাছ থেকে ১৬লাখ টাকা নিয়ে মনোনিত করার জন্য জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এদিকে স্কুল পরিচালনা পরিষদের সদস্য সেলিম রেজা, কবিরুল ইসলাম, ফারুক হোসেন, শাহাদাত হোসেন, আঃ হামিদ বলেন, সরকারী বিধি মোতাবেক এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে না। শুধুমাত্র টাকার বিনিয়মে অযোগ্য ব্যক্তি ওয়াদুদকে প্রধান শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ দেওয়ার পায়তারা চলছে। এদিকে চন্দনপুর ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুল ইসলাম বলেন, আব্দুল ওয়াদুদ এইচএসসিতে ৩য় বিভাগ থাকার পরেও চান্দুড়িয়া কেসিজি ইউনাইটেড হাই স্কুলে প্রধান শিক্ষক হওয়ার যোগ্য হরিয়ে ফেলেছে। এই অযোগ্য ব্যক্তিকে ওই প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ পেলে শিক্ষা ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়বে। সকল অভিভাবক দাবী তুলেছেন যে বহুল প্রচারিত দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে নতুন করে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বোর্ড গঠন করা হোক। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে তারা শিক্ষা সচিব ঢাকা, চেয়ারম্যান দূনীতি দমন কমিশন সেগুনবগিচা ঢাকাসহ সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে গণদরখাস্ত করেছেন।






মন্তব্য চালু নেই