মেইন ম্যেনু

এখনো আশায় আছি : সাখাওয়াত

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে পরাজয়ের পর কারচুপির ইঙ্গিত করে বিএনপি প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান দাবি করেছেন, নির্বাচন কমিশন যথাযথভাবে তাকে ফলাফলের তথ্য প্রদান করছেনা। ১৭৪ কেন্দ্রের মধ্যে ৩০ টি কেন্দ্রের ফলাফল নির্বাচন কমিশন তাদের দিয়েছেন বলে জানান তিনি। বাকি সব কেন্দ্রের ফলাফল পাবার আশায় আছেন তিনি। সাখাওয়াত দাবি করেন, অসংখ্য কেন্দ্রে সর্বমোট ভোটের থেকে বেসি ভোট কাস্টিং দেখানো হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাত দশটার দিকে তার নির্বাচন পরিচালনার মিডিয়া ক্যাম্প থেকে গণমাধ্যমকে একথা জানান তিনি। সাখাওয়াত আরো বলেন, এমনও আছে কোন কেন্দ্রে মোট ভোটার আছে ১২০০ কিন্তু কাস্টিং ভোট দেখানো হয়েছে ১৩০০।

তবে তার এই অভিযোগ কেন নির্বাচন চলাকালীন নির্বাচন কমিশন, নির্বাচন পর্যবেক্ষক কিংবা গণমাধ্যমকে জানানো হয়নি সাংবাদিকদের এমন প্রশ্ন কিছুটা এড়িয়ে গিয়ে তিনি বলেন, সবগুলো কেন্দ্রের ফলাফল পাওয়ার পর আনুষ্ঠানিক ভাবে সব বিষয় তুলে ধরবেন তিনি।

বৃহস্পতিবার ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী নৌকা প্রতীক নিয়ে ১ লাখ ৭৪ হাজার ৬০২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছেন ৯৬ হাজার ৭০০ ভোট। বেসরকারি ফলাফলে বলা যায় নাসিকে মেয়র হচ্ছেন আইভী।

শুক্রবার সকাল আনুষ্ঠানিকভাবে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করা হবে। এ ছাড়া আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে ২৪ ডিসেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত নাসিকে সভা-সমাবেশ, মিছিল নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

প্রথমবারের মতো ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়াই করেছেন আইভী। মাত্র কয়েক দিন সাবেক হয়ে যাওয়া নারায়ণগঞ্জের নবনির্বাচিত মেয়রের মূল লড়াই হয় ধানের শীষ প্রতীকের বিএনপির প্রার্থী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের সঙ্গে। এ ছাড়া আরো ৫টি রাজনৈতিক দলের মেয়র প্রার্থী হিসেবে জয়ের লড়াই করেছেন কোদাল প্রতীকে বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির মাহবুবুর রহমান ইসমাইল, মিনার প্রতীকে ইসলামী ঐক্যজোটের মুফতি এজহারুল হক, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মুফতি মাছুম বিল্লাহ, এলডিপির কামাল প্রধান এবং কল্যাণ পার্টির রাশেদ ফেরদৌস।






মন্তব্য চালু নেই