মেইন ম্যেনু

বিশ্বকাপ ফুটবল’১৪ আজ শুরু

উদ্বোধনী ম্যাচে শেষ হাসি কার?

আজ রাতে সাওপালোতে শুরু হবে বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচ। এই ম্যাচের মাধ্যমেই একমাসব্যাপী ফুটবল উৎসবে মাতবে পুরো বিশ্ব। আর স্বাগতিক দেশ ব্রাজিল মাঠে নামবে তাদের বিশ্বকাপ জয়ের মিশনে। প্রথম ম্যাচে তাদের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া। প্রতিপক্ষ দলের নামটা এতটা ভারী না হলেও প্রথম ম্যাচে নেইমার-ফ্রেডদের উপর প্রত্যাশার চাপটা থাকবে পাহাড়সম। গ্যালারিতে ভিড় করা ব্রাজিলিয়ানরা দলের সাদামাটা জয় যে গ্রহণ করে নিতে পারবে না! হ্যাঁ, তাই গোলটা দ্রুতই পেতে চাইবে নেইমার-ফ্রেডরা।

ক্রোয়েশিয়া তাদের প্রস্তুতি সেরে রেখেছে জয় দিয়েই। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ১-০ গোলে জয় পেয়েছে প্রস্তুতি ম্যাচে। কিন্তু ব্রাজিলের ইতিহাসের সবচেয়ে কৃপণতম ডিফেন্স ভাঙ্গা কঠিন হবে তাদের জন্য।

১৯৫০ সলে ঘরের মটিতে বিশ্বকাপ জয় করতে ব্যর্থ হয়েছিল ব্রজিল। ৬৪ বছর পর আবার ঘরের মাটিতে বিশ্বকাপ জয়ের স্বপ্নে মগ্ন হয়ে আছে ব্রাজিলবাসী। এবার বিশ্বকাপ জয় করতে না পারলে ১৯৫০ সালের মত দুঃসহ স্মৃতি তাড়া করে বেড়াবে তাদের। তাই বিশ্বকাপ জয়ের লক্ষ্যে ব্রাজিল বিশ্বকাপ জয়ী দুই কোচ লুই ফিলিপ স্কলারি ও আলবার্তো পাহেইরার স্মরণাপন্ন হয়েছে ব্রাজিল। পাঁচ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা দেশের মাটিতে কনফেডারেশন কাপ চ্যাম্পিয়ন হবার পথে অসাধারণ খেলেছে এই দুই কোচের অধীনেই। সেই রকমভাবে আবারও দলের সব অস্ত্রের ঝলক আবারও দেখাবে কিনা ব্রাজিল তা দেখতে অপেক্ষা করছে কোটি কোটি চোখ। আর যে মুহূর্তে বিশ্বকাপের বলে প্রথম কিকটা পড়বে তখন সমস্ত ব্রাজিলবাসীর চোখ থাকবে মাঠে।

লুই ফিলিপ স্কলারি প্রথম ম্যাচে ৪-২-৩-১ ফরমেশনে খেলবে। আর গোলবার আগলে রাখার দায়িত্বটা থাকবে সিজারের। ডিফেন্সে ডানে আলভেজ ও বামে মারসেলোকে রেখে মাঝে থাকবেন লুইজ ও সিলভা। নিঃসন্দেহে বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা ডিফেন্সের এক সন্নিবেশ এটা। আক্রমণে নেইমার ও হাল্ককে দুইপাশে রেখে সেন্ট্রাল অ্যাটাকে ফ্রেডকে খেলাবেন স্কলারি। আর মাঝমাঠ সামলাবেন অস্কার, পাওলিনহো ও গোস্তাভো।

অন্যদিকে ক্রোয়েশিয়া দলের অন্যতম স্ট্রাইকার মান্ডজুকিকে দলে পাবে না দলে। নিষেধাজ্ঞার কারণে প্রথম ম্যাচে খেলছেন না তিনি। তবে কোস্টারিকা দলে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার এডওয়ার্ড থাকবেন। মজার ব্যাপার হল এডওয়ার্ড তার এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন যে তিনি উদ্বোধনী ম্যাচের আগে হয়ত দুটি জাতীয় সংগীতই গাইবেন। তবে জাতীয় সংগীত দুটি গাইলেও খেলবেন এক দেশের হয়েই! আর সাবেক ক্রোয়েশিয়ান খেলোয়াড় কোভাকের অধীনে গুছিয়ে উঠা দলটি পরবর্তী পর্বে যাবার জন্য জয়ের লক্ষ্য নিয়েই মাঠে নামবে।

ক্রোয়েশিয়া বস কোভাকও তার দলকে ৪-২-৩-১ ছকে সাজাবেন। আর ক্রোয়েশিয়ার গোলবার আগলে রাখবে পেলটোকোসা। আর নেইমার এন্ড কোং দলকে থামানোর জন্য ১০১ ম্যাচ খেলা অভিজ্ঞ সোর্নার সঙ্গে থাকবে প্রানজিক, লভরেন ও করলোকা। মিডফিল্ডে মোডরিক ও ভোকোজেভিককে দারুণ প্রতিভাবান খেলোয়াড়। স্ট্রাইকার হিসেবে মাঠে নামতে পারেন ওলিকও। তারা যদি তাদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারে তা হলে ব্রাজিলকে ভুগতে হতে পারে এমনটাই মনে করেন ফুটবলবোদ্ধারা।

তবে পুরো ম্যাচজুরে আলো থাকবে ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার নেইমার দ্য সিলভার উপরই। বর্তমান সময়ের সেরা এই তারকা কনফেডারেশন কাপেও দুর্দান্ত খেলেছেন। আর বলের উপর কাল্পনিক পর্যায়ের দখল রেখে এগিয়ে যেতে সক্ষম তিনি। তাই ব্রাজিলকে জেতাতে সব কিছুই ঢেলে দিলে মাঠে দুর্দান্ত এক নেইমারকেই দেখবে বিশ্ব।

ফেভারিট হিসেবে ব্রাজিলই জিতে নিবে ম্যাচ এমন ধারণা পোষণ করেন ফুটবলবোদ্ধারা। আর তা না হলে তা রড় ধরনের অঘটন হবে। তবে স্বাভাবিক ভাবে বলা যায় ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয়ের মিশন শুরু হবে ২-০ গোলের জয় দিয়ে। আর স্কোর লাইনে নামটা থাকতেই পারে নেইমারের।






মন্তব্য চালু নেই