মেইন ম্যেনু

‘আতিয়া মহল’ ঘিরে বিশ্ব গণমাধ্যমে বাংলাদেশ

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার জঙ্গি আস্তানা ‘আতিয়া মহলের’ কাছে বিস্ফোরণে দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ ছয়জনের প্রাণহানি ও টানা চারদিনের অভিযানে আবারও বিশ্ব গণমাধ্যমের আলোচনার বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছে বাংলাদেশ।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী গণমাধ্যমে গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার ও প্রকাশ করা হচ্ছে বাংলাদেশের জঙ্গি আস্তানায় অভিযান ও বিস্ফোরণে হতাহতের খবর। শনিবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টা ও সাড়ে ৭টায় দুটি বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে পুলিশের দুই কর্মকর্তাসহ অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছে।

বিস্ফোরণের পর পরই ‘বাংলাদেশের বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৬, আহত বহু’ শিরোনামে ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে পুলিশের বরাত দিয়ে বলা হয়, শনিবার বাংলাদেশে একটি জঙ্গি আস্তানার কাছে বিস্ফোরণে দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ কমপক্ষে ছয়জন নিহত ও বহু আহত হয়েছেন; ওই আস্তানায় কমান্ডো অভিযান চলছে।

এতে বলা হয়, জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) সিলেটে বোমা হামলার দায় স্বীকার করেছে। আইএস নিয়ন্ত্রিত সংবাদসংস্থা আমাক’র বরাত দিয়ে জঙ্গি কার্যক্রম পর্যবেক্ষণকারী গ্রুপ ‘সাইট ইনটেলিজেন্স’ এ তথ্য দিয়েছে।

রয়টার্স বলছে, চলতি মাসে নিরাপত্তা বাহিনীর ঘাঁটিতে আত্মঘাতী হামলা বেড়ে যাওয়ায় সিলেটে অভিযান চালাচ্ছে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরা বলছে, বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে জঙ্গিবিরোধী অভিযানের সময় বিস্ফোরণে এক পুলিশ কর্মকর্তাসহ অন্তত তিনজন নিহত হয়েছে।

‘বাংলাদেশে জঙ্গি অভিযানের মাঝেই সিলেটে বিস্ফোরণে নিহত ৪’ শিরোনামের এক প্রতিবেদনে বিবিসি বলছে, বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে জোড়া বোমা বিস্ফোরণে দুই পুলিশ কর্মকর্তা ও চার বেসামরিক নাগরিকসহ ছয়জন নিহত হয়েছে।

সিলেটের একটি ভবনে সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানায় কমান্ডো অভিযান চালাচ্ছে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী। এর আগে ওই ভবন থেকে অনেক বেসামরিক নাগরিককে বের করে আনা হয়। সন্দেহভাজন জঙ্গিরা আত্মসমর্পনে অস্বীকার করেছে। শনিবারের জোড়া বিস্ফোরণে কয়েক ডজন মানুষ আহত হয়েছে। সেনাবাহিনীর ইউনিট ওই ভবন ঘিরে রেখেছে।

পুলিশের বরাত দিয়ে এতে বলা হয়, একটি মটরসাইকেলে করে দুই ব্যক্তি ঘটনাস্থলে বিস্ফোরক ডিভাইস নিয়ে আসার পরপরই বিস্ফোরণ ঘটে। পরে সেখানে সবজির ব্যাগে রাখা বোমার দ্বিতীয় বিস্ফোরণ ঘটে।

বার্তাসংস্থা এএফপি বলছে, বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় শহর সিলেটে ভিড়ের মাঝে দুটি বোমা বিস্ফোরণে ছয়জন নিহত ও ৫০ জন আহত হয়েছে; যেখানে সেনাবাহিনী একটি জঙ্গি আস্তানায় কমান্ডো অভিযান চালাচ্ছে। জঙ্গি আস্তানা থেকে ৪০০ গজ দূরে পুলিশ ও শত শত উৎসুক জনতা; যারা পাঁচতলা একটি ভবনে জঙ্গিবিরোধী কমান্ডো অভিযান দেখছিলেন তাদেরকে লক্ষ্য করে ওই শক্তিশালী বিস্ফোরণ ঘটেছে।

সিলেট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক আতিকুল ইসলাম বলেন, বিস্ফোরণে আহত বেশ কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

সেনাবাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ফখরুল আহসান এএফপিকে বলেন, জিম্মিদের উদ্ধার করাই ছিল আমাদের প্রধান কাজ। যা আমরা সফলভাবে সম্পন্ন করেছি। আমরা ৭৮জনকে নিরাপদে উদ্ধার করেছি।

চলতি মাসে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে পুলিশের এলিট ইউনিটের সদস্যরা একটি ভবনে অভিযান চালিয়ে দেশীয় জঙ্গিগোষ্ঠী জামায়াতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের এক নারী সদস্যসহ চারজনকে হত্যা করে।

এএফপি বলছে, ২০১৫ সাল থেকে দেশটিতে বিভিন্ন হামলা ও হত্যার দায় স্বীকার করেছে আইএস। এর মধ্যে গত বছর ঢাকার একটি ক্যাফেতে হামলায় ২২ জনকে হত্যার দাবি করে এই জঙ্গিগোষ্ঠী। নিহতদের ১৮ জনই বিদেশি জিম্মি ছিলেন।

বাংলাদেশ সরকার বরাবরের মত দেশে আইএসের উপস্থিতি অস্বীকার করে আসছে। সরকার বলছে, দেশীয় জঙ্গিগোষ্ঠী জেএমবির নব্য শাখার সদস্যরা ক্যাফে ও অন্যান্য হামলায় জড়িত।

এছাড়াও ভারতের এনডিটিভি, টাইমস অব ইন্ডিয়া, পাকিস্তানের ডন, এক্সপ্রেস ট্রিবিউন, মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন, নিউইয়র্ক টাইমস, ওয়াল স্ট্রিট জার্নালসহ বিভিন্ন দেশের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম সিলেটে জঙ্গি আস্তানায় কমান্ডো অভিযান ও আস্তানার পাশে বিস্ফোরণে হতাহতের খবর প্রকাশ করছে।






মন্তব্য চালু নেই