মেইন ম্যেনু

অনলাইনে যে ভুল করছেন প্রতিনিয়ত

আজকাল অনলাইনে আপনার সময় কাটছে অনেক বেশি। বেশ কিছু বিষয় আপনার মনে খুবই আকর্ষণ সৃষ্টি করেছে। কোনো ব্যাপারে তেমন কোনো খটকা লাগেনি। আপনার এই সরল বিশ্বাসের ফাঁকে জন্মে যাচ্ছে অবিশ্বাস্য অনেক ঘটনা। প্রতিনিয়ত আপনি হয়তো জন্ম দিচ্ছেন ভুল কোনো ধারণার। আবার এমন এক সময় অাসবে যখন, আপনার চোখেও ধরা পড়ছে অসামঞ্জস্য কোনো কিছু। যেমন-

* আপনি কোনো সামাজিক মাধ্যমে নিজেকে তুলে ধরেছেন বন্ধু হিসেবে। কিন্তু সেখানে কি নিজের সম্পর্কে পুরোপুরি তথ্য তুলে ধরেছেন? ঠিক এমনিভাবে অপরদিক থেকেও আপনার বন্ধুও হয়তো নিজের পরিচয় গোপন রেখেছেন। আর এখানেই কিছু ভুলের জন্ম হচ্ছে। অনলাইনে পরিচয়ের পর বন্ধুত্বের খাতিরে অনেকের অনেক ধরনের সিদ্ধান্তও নিতে দেখা গেছে। তারপর পড়ে যান নানা সমস্যায়। তাই এখন থেকেই সাবধান।

* ধরুন, বন্ধুকে আপনি কোনো বার্তা পাঠালেন কিন্তু কোনো সাড়া পেলেন না। তখন বার বার চেষ্টা চালাতে লাগলেন। এতে বন্ধুটি বিরক্ত হচ্ছেন, এমন আচরণে আপনিও হয়তো বিরক্ত হতেন। তাই অপরের বিরক্ত করা থেকে দূরে থাকুন, নিজেও বিরক্তমুক্ত থাকুন।

* নিজের প্রফাইলে সব ধরনের মিথ্যাকে এড়িয়ে চলা উচিৎ। হয়তো আপনি অন্যের ছবিও ব্যবহার করেছেন। এতে যেমন নিজেকে ছোট করছেন, তেমনি অপরকে ধোকায় ফেলছেন। যদি কখনো প্রমাণিত হয় আপনি এমন প্রতারক, তাহলে আপনার সম্মান ধরে রাখা কি আর সম্ভব?

* ইদানিং অনলাইনে পরিচিত হওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই অপর পক্ষ থেকে দেখা করতে চাওয়া হয়। দেখা করতে ইচ্ছুকদের ৯০ শতাংশই দেখা যায় পুরুষ, নারী থাকে ১০ শতাংশ। এক্ষেত্রে দেখা করতে যাওয়া ব্যক্তি যে কোনো ধরনের প্রতারণার শিকার হবেন না তার কোনো নিশ্চয়তা আছে? তাই অনলাইনে পরিচিতর সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার আগে সাবধান!

* অনেক কথার ভিড়ে বন্ধুকে টাকা-পয়সা বা পারিবারের বিষয়ে জিজ্ঞেস করলেন। আপনি হয়তো খুব সাধারণভাবে তাকে এসব বিষয়ে প্রশ্ন করলেন, কিন্তু সে আপনাকে সন্দেহ করে বসতে পারে। তার দিক থেকে এমন কোনো কথা শুনলেন যে মেজাজকে আর সামাল দিতে পারলেন না।

* আপনার প্রফাইলে ব্যবহৃত যেকোনো ছবি হয়তো অন্যের কাছে খুবই খারাপ লাগতে পারে। বাজে কোনো মন্তব্যও করতে পারে। হয়তো আপনার ব্যক্তিত্ব সম্পর্কে তারা একেবারেই অবগত না থেকে অন্যভাবে ভাবতে শুরু করবে। তখন অস্বস্তির আর সীমা থাকবে না। তাই অনলাইনে বন্ধুত্ব করার আগে ভাবুন আরও একবার।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই