মেইন ম্যেনু

অজগর উধাও, ৫দিনেও সন্ধান মেলেনি

রাজশাহী : ৫দিনেও খোজ মিলেনি শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানার অজগর সাপের। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানাও খাঁচা থেকে গত শুক্রবার সকালে একটি অজগর সাপ হারিয়ে যায়। এ ঘটনায় ৯ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের মধ্যে এ নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক তোলপাড়। এছাড়া অজগর সাপ খাঁচার বাইরে চলে যাওয়ার খবরে আতঙ্কিত চিড়িয়াখানার দর্শনার্থীরা।

এদিকে, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যেমে জানায়, অজগর সাপ উদ্ধারের বিষয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে রাসিকে পার্ক ও বিনোদন স্পট ব্যবস্থাপনা বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় নয় সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সভাপতি পার্ক ও বিনোদন স্পট ব্যবস্থাপনা বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি সোহরাব হোসেন শেখ।

সদস্যরা হলেন, ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কামরুজ্জামান, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সচিব সৈয়দা জেবিননিছা সুলতানা, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা ও শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা খন্দকার মাহাবুবুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক, নির্বাহী প্রকৌশলী মাকসুদ আলম, ভারপ্রাপ্ত সহকারী হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা ওয়ালিদ হাসান মাহমুদ, সম্পত্তি কর্মকর্তা মনজুর রহমান জন ও ভারপ্রাপ্ত ভা-ার কর্মকর্তা শমসের আলী।

কমিটি আজ বিকেল থেকেই জরুরী ভিত্তিতে কার্যক্রম শুরু করবে। তাঁরা সাপটি অনুসন্ধানের জন্য প্রয়োজন অনুসারে সাপুড়ে, বিশেষজ্ঞ ও বন্য প্রাণী সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহযোগিতা গ্রহণ করবে।

সোমবার বিকেলে চিড়িয়াখানায় গিয়ে দেখা যায়, হারিয়ে যাওয়া অজগর সাপটি খুঁজছে উদ্যানে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। তারা চিড়িয়াখানা সংশিষ্ট ড্রেন, গর্ত, পুকুরে খুঁজছেন। এমনকি শ্রমিক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে অজগরটি খোঁজার জন্য। কিন্তু সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত সাপটি পাওয়া যায় নি।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, শুক্রবার সকালে সাপের খাঁচা পরিষ্কারের সময় দেখা যায়, অজগর সাপটি খাঁচায় নেই। ঘটনাটি তখন গোপন রাখে কর্তৃপক্ষ। পরে ওইদিন থেকেই পুরো চিড়িয়াখানায় অজগরটির সন্ধানে নামেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। কিন্তু ধীরে ধীরে এ খবর ছড়িয়ে পড়লে দর্শনার্থীরা আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। অনেকে চিড়িয়াখানা থেকে চলে যান।

শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান কেন্দ্রীয় উদ্যান ও চিড়িয়াখানার সুপারভাইজার আবদুল খালেক স্বপন জানান, প্রায় দেড়মাস আগে নওগাঁতে ধরা পড়ে এ অজগরটি। পরে বনবিভাগ তাদের কাছে হস্তান্তর করে। এর আগেও গত সপ্তায় তিনবার অজগরটি খাঁচা থেকে বেরিয়ে পড়ে। পরে খোঁজাখুঁজি করে চিড়িয়াখানার মধ্যেই পাওয়া যায়। কিন্তু এবার অনেক খোঁজাখুঁজির পর এখনো পাওয়া যায়নি। ড্রেন থেকে শুরু করে সম্ভাব্য সব জায়গায় খোঁজা হচ্ছে। সাপটি চিড়িয়াখানা বাইরে কোথাও যায়নি বলে দাবি করেছেন তিনি।






মন্তব্য চালু নেই