মেইন ম্যেনু

৩৬ বছর পর ফেসবুকের কল্যানে মেয়েকে খুঁজে পেলেন বাবা, থাকতেন একই মহল্লায়

মাত্র তিন বাড়ি পরই তাঁর বাবার বাস। অথচ মেয়ে সেটা জানেনই না! আর মেয়ে বাবাকেই খুঁজে বেড়াচ্ছেন ১৮ বছর ধরে! বাবাও জানেন না, মেয়ে এ মহল্লায়ই থাকে। সম্প্রতি আশ্চর্য এই ঘটনা ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডে। মেয়ের নাম নাটালি বাইয়ার্স। এখন তাঁর বয়স ৩৬। আর বাবার নাম ওয়েন লুইস।

নাটালি জন্মের পর থেকেই অন্য একজনকে বাবা হিসেবে চিনেছিলেন। ১৮ বছর পর জানতে পারেন, যাঁকে বাবা বলে ডাকেন নাটালি, তিনি তাঁর বাবা নন। নাটালির সত্যিকারের বাবার নাম লুইস। তাঁর জন্মের পরপরই বাবার সঙ্গে মায়ের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। মা মারা যাওয়ার আগে সত্যটা মেয়েকে জানিয়ে যান। সেই থেকেই বাবাকে খুঁজতে থাকেন নাটালি। কিন্তু এত বড় দুনিয়ায় হারিয়ে যাওয়া একজন মানুষকে ঠিকানা ছাড়া খুঁজে পাওয়া এত সহজ! কিন্তু হালও ছাড়েননি।

অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পাওয়ায় শেষ পর্যন্ত দ্বারস্থ হন ফেসবুকের। সেখানে মা-বাবার ছবি পোস্ট করে লেখেন, এঁরা তাঁর মা-বাবা এবং বাবা ওয়েন লুইস নাটালির জন্মের পরপরই তাঁদের ছেড়ে চলে যান। এখন বাবাকে ফিরে পেতে চান তিনি।

পোস্টটি অসংখ্যবার শেয়ার হয় ফেসবুকে। আর ভাগ্যক্রমে ওটা নজরে আসে লুইস ওয়েনের। মেয়ের এমন আকুতি দেখে এত বছর পর মন হু হু করে ওঠে বাবার। তিনি যে বেঁচে আছেন, তা মেয়েকে ফেসবুকে মেসেজ পাঠিয়ে নিশ্চিত করেন। ঠিকানাটাও দিয়ে দেন সেখানে। তা দেখে মেয়ে তো অবাক। কারণ ঠিকানাটা আর কোথাও নয়, তাঁরই এলাকায়। মাত্র তিন বাড়ি পরে।

তাঁরা প্রতিবেশী হিসেবে বহু দিন একই এলাকায় বসবাস করছেন। কিন্তু কেউ কারো পরিচয় জানতেন না। ঠিকানা জানার পর খুব দ্রুতই বাবার সঙ্গে দেখা করেন মেয়ে নাটালি। অবশেষে ৩৬ বছর পর মেয়ে বাবাকে পান, আর বাবা পান মেয়েকে।






মন্তব্য চালু নেই