মেইন ম্যেনু

২ রানের জন্য হলো না বিশ্বরেকর্ড

যেদিন ডেভিড ওয়ার্নারের ব্যাট চলে, সেদিন বোলাররা তো স্রেফ অসহায়। আজ অ্যাডিলেডে এই অসি ওপেনারের সামনে পাকিস্তানি বোলাররাও অসহায় ছিলেন। ওয়াহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ আমিরদের দর্শক বানিয়ে একের পর এক চার-ছয় মেরে গেছেন ওয়ার্নার। ২৮৪ রানে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ফিরে যাওয়ার সময় কিছুটা স্বস্তি পেয়েছেন তিনি, কারণ সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পরই হ্যামস্ট্রিংয়ের চোটে ভুগছিলেন তিনি। একটা সময় তো ব্যাটই করতে পারছিলেন না ওয়ার্নার। আউট হওয়ার সময় কিছুটা আক্ষেপও সঙ্গী হয়েছে এই ব্যাটসম্যানের। কারণ, বিশ্বরেকর্ড থেকে মাত্র ২ রান দূরে ছিলেন তিনি। এর আগে ২০০৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে লিডসে ২৮৬ রানের জুটি বাঁধেন উপুল থারাঙ্গা ও সনাথ জয়সুরিয়া। এই রেকর্ড ভাঙার নিশ্বাস দূরত্বে ছিলেন ওয়ার্নার-হেড জুটি। জুনায়েদ খানের বলে বাবর আজমের তালুবন্দি হওয়ার আগে ১২৮ বলে ১৭৯ রান করেন ওয়ার্নার। ১৯ চার ও ৫ ছয়ে এই রান করেন তিনি।

বিশ্বরেকর্ড না হলেও দেশের হয়ে নতুন রেকর্ড গড়েছেন ওয়ার্নার ও হেড। এর আগে ২০১৩ সালে শন মার্শ ও অ্যারন ফিঞ্চের করা ২৪৬ রানই ছিল উদ্বোধনী জুটিতে অস্ট্রেলিয়ার সেরা জুটি। আজ সেটাকে নতুনভাবে গড়লেন ওয়ার্নার-হেড জুটি। আজ নিজের সর্বোচ্চ ১৭৮ রানের রেকর্ডটাকে ছাড়িয়ে গেলেন ওয়ার্নার। গত বছর আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১৩৩ বলে ১৭৮ রান করেন তিনি। আর ছয় রান করলে বাংলাদেশের বিপক্ষে করা শেন ওয়াটসনের ১৮৫ রানের রেকর্ডটা ভাঙতে পারতেন ওয়ার্নার। ওয়ানডেতে কোনো অসি ব্যাটসম্যানের এটিই সর্বোচ্চ রান।

এ মৌসুমে ওয়ানডেতে ওয়ার্নারের এটি ষষ্ঠ সেঞ্চুরি। গত মৌসুমে ছয় সেঞ্চুরি করেছিলেন কুমার সাঙ্গাকারা। তবে সাঙ্গার রেকর্ডটা বোধ হয় আর বেশিদিন টিকবে না। কারণ, এই মৌসুমে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আরো তিনটি ওয়ানডে খেলবেন ওয়ার্নার। আর একটি সেঞ্চুরি হলেই ওয়ানডেতে এক মৌসুমে সবচেয়ে বেশি শতক করার রেকর্ডটি নিজের করে নেবেন বাঁহাতি এই ব্যাটসম্যান। ওয়ার্নারের ১৭৯ ও ট্রাভিস হিডের ১২৮ রানে ভর করে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৩৬৯ রানের পাহাড় গড়ছে স্বাগতিকরা।






মন্তব্য চালু নেই