মেইন ম্যেনু

২ কোটি টাকা খরচ করে এক শয্যার হাসপাতাল!

মিশরের বন্দর-শহর আলেকজান্দ্রিয়ার বাসিন্দা ইমান আহমেদ আব্দুলাতি। বর্তমানে তাঁর বয়স মাত্র ৩৭ বছর।

অসুস্থতার জন্য ১১ বছর বয়স থেকেই শয্যাশায়ী। এবং বর্তমানে তাঁর ওজন প্রায় ৫০০ কিলোগ্রাম।

ছোটবেলায় একবার হৃদরোগে আক্রান্ত হন ইমান। তারপরেই আংশিকভাবে চলাফেরার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন তিনি।

এবং নড়াচড়া না করার ফলেই মূলত তাঁর ওজন বাড়তে থাকে, বলে মনে করেন ইমানের মা-বাবা। বয়স ও ওজন বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে, ইমানের শরীরে দানা বেঁধেছে আরও রোগ। এখন হাইপার টেনশন, পালমনারি ডিসঅর্ডার, ডিপ্রেশন, ডায়াবেটিস, অ্যাজমায় আক্রান্ত ইমান।

এত কিছু খারাপ খবরের মধ্যে একটাই ভাল খবর রয়েছে। মুম্বইয়ের এক ‘ব্যারিয়াট্রিক সার্জেন’, মুফি লাকডাওয়ালা, নিজেই দায়িত্ব নিয়ে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজকে টুইট করেন ইমানের চিকিৎসার জন্য। প্রসঙ্গত, এর আগেও একবার ইমান ভিসার জন্য আবেদন করেছিলেন, যা প্রত্যাক্ষিত হয়।

কিন্তু, এবারে এমনটা আর হয়নি। গত মাসে, মুফি লাকডাওয়ালার টুইটের জেরে, প্রশাসন প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই আবেদনে সাড়া দেয়।

সাধারণ ফ্লাইটে ইমানকে নিয়ে আসা সম্ভব নয়। তা ছাড়া, কায়রো থেকে মুম্বই পর্যন্ত সরাসরি কোনও ফ্লাইটও হয় না। তাই তাঁকে এখানে আনার জন্য একটি প্রাইভেট চার্টার্ড ফ্লাইটের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এদিকে, বাণিজ্য নগরীর সাইফে হাসপাতালে চলছে ইমানকে স্বাগত জানানোর তোড়জোড়। প্রায় ২ কোটি টাকা খরচা করে ইমানের জন্য তৈরি করা হচ্ছে একটি ‘ওয়ান-বেড হসপিটাল’।

একেবারে আলাদা করে একটি ঘর তৈরি করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, যেখানে অপরেশন থিয়েটর, আইসিসিইউ থেকে শুরু করে থাকবে ডাক্তার-অ্যাটেন্ডেন্টদের থাকার ঘরও। ৩০০০ ফুটের ঘরটিই হবে ইমানের আগামী ছ’মাসের বাসভবন।

এ মাসের শেষেই ইমানের ঘরটি প্রস্তুত হয়ে যাবে। তবে, যার জন্য এত ব্যবস্থা, তিনি কবে ভারতে আসবেন তা এখনও অজানা।






মন্তব্য চালু নেই