মেইন ম্যেনু

১০ লাখ মানুষের সমাবেশের আশা বিএনপির

নারায়ণগঞ্জসহ দেশব্যাপী খুন, গুম ও অপহরণের প্রতিবাদে আগামী  ১৭ মে রাজধানীর  যাত্রাবাড়ীর শহীদ ফারুক সড়কে সমাবেশ করবে বিএনপি।

সমাবেশে  প্রধান অতিথি থাকবেন দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। ওই সমাবেশে ১০ লাখ মানুষের সমাগম ঘটানো হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

বুধবার বিকেলে রাজধানীর ভাসানী মিলনায়তনে এক যৌথসভার উদ্বোধনী বক্তব্যে ঘোষণা এই ঘোষণা  দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম। জনসভা উপলক্ষে এ যৌথসভার আয়োজন করা হয়।

তরিকুল ইসলাম বলেন, দেশের চলমান পরিস্থিতিতে এ সমাবেশ সফল করতে জাতির কাছে বিএনপি দায়বদ্ধ।  জনসভা সফল করতে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে বিএনপির সকল নেতাকর্মীর প্রতি তিনি আহ্বান জানান।

বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘আন্দোলনে কে সফল, কে ব্যর্থ- তা নিজের বিবেক বলবে। তাই এ বিষয়ে চিন্তা করে   কোনো বিভেদ রাখা যাবে না। মতপার্থক্য থাকলেও ঐক্যবদ্ধ হয়ে জনসভা সফল করাই হবে মুল লক্ষ্য। ওই এলাকায় ১০ লাখ লোকের সমাগম করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

উদ্বোধনী বক্তব্যে বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা বলেন, ১৭ মে যাত্রাবাড়ী-ডেমরা এলাকায় স্মরণকালের বৃহৎ সমাবেশ হবে। দেশের মানুষ নারায়ণগঞ্জসহ অব্যাহত এসব হত্যাকাণ্ডে ফুঁসে উঠেছে। সর্বোচ্চ লোক সমাগমের মাধ্যমে জনক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটানো হবে।

সাদেক হোসেন খোকার সভাপতিত্বে যৌথসভায় বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলম, ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আব্দুস সালাম, বিএনপির যুব বিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জোম হোসেন আলাল, সহ-ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবীব উন নবী খান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক সরাফত আলী সপু, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবীব, ওলামা দলের সভাপতি হাফেজ আব্দুল মালেক, ঢাকা মহানগর বিএনপির যুগ্ম-আহ্বায়ক আনায়ার হোসেন , নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার ও সাধারণ সম্পাদক কাজী মনিরুজ্জামান উপস্থিত ছিলেন।






মন্তব্য চালু নেই