মেইন ম্যেনু

হঠাৎ নিস্তব্ধ জঙ্গি আস্তানা, কৌশল নয় তো?

সিলেটের পর এবার মৌলভীবাজারে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে দুটি বাড়ি ঘেরাও করে রেখেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে ঘেরাও করা সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের ফতেপুরের টিনশেড বাড়ি থেকে বুধবার সকাল সাড়ে ৬টা-৭টার দিকে পরপর চারবার বিকট শব্দ পাওয়া যায়। এ শব্দে এলাকার ছোট বড় সবই আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। কিছুক্ষণ পর কয়েকটি গ্রেনেড ছুড়ে মারে জঙ্গিরা। সবশেষ দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে গুলির শব্দ পাওয়া যায়। তারপর থেকে আর কোনো সাড়াশব্দ নেই।

পুলিশ রাতে ঘেরাও করলেও সকালে ঘটনাস্থলে আসে র‍্যাব-ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। পাশাপাশি ঢাকা থেকে আসে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট। ঘটনাস্থলে অ্যাম্বুলেন্সও আনা হয়েছে।

খলিলপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) মেম্বার ফারুক মিয়া জানান, টিনশেড বাড়ি থেকে সকাল সাড়ে ৬টা থেকে ৭টার দিকে বিকট শব্দ পাওয়া যায়। এ শব্দে এলাকার ছোট বড় সবাই আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। এরপর র‍্যাব-পুলিশকে লক্ষ্য করে জঙ্গিরা কয়েকটি গ্রেনেড নিক্ষেপ ও গুলি ছোড়ে। দুপুরের পর আর কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি। ভেতরে যারা ছিল তারা মারা গেছে নাকি ঘাপটি মেরে আছে তা বোঝা যাচ্ছে না।

সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান ঘটনাস্থল থেকে জানান, ভোরে জঙ্গিরা ৪টা বিস্ফোরণ ঘটায়। এরপর সকালে র‍্যাব-পুলিশকে লক্ষ্য করে কয়েকটা গ্রেনেড ও গুলি ছুড়ে মারে। দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে সবশেষ গুলি ছোড়া হয়। এরপর থেকে ভেতর থেকে আর কোনো সাড়া-শব্দ পাওয়া যাচ্ছে না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কয়েকজন সদস্য জানান, নানাভাবে জঙ্গিদের সাড়া-শব্দ পাওয়ার চেষ্টা করেও পাল্টা জবাব পাওয়া যাচ্ছে না। ধারণা করা হচ্ছে ভেতরে যারা ছিল তারা সবাই মারা গেছে। আবার জঙ্গিরা অন্য কোনো কৌশল অবলম্বর করছে কি না সেটারও আশঙ্কা করা হচ্ছে। ঘটনাস্থলে এখনও সোয়াট টিম এসে পৌঁছায়নি। সোয়াট টিমই মূল অভিযান চালাবে।

এদিকে বড়হাট এলাকার তিনতলা বাড়িতে দুপুরে বিদ্যুৎ, গ্যাস ও পানির লাইন বন্ধ করা হয়েছে। বাড়ির চারপাশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য অবস্থান করছেন।

দুটি বাড়ি জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে ঘিরে রাখার পর থেকে মৌলভীবাজারের শহরে এক প্রকার সুনসান নীরবতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সর্বসাধারণের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। একান্ত প্রয়োজন ছাড়া ভয়ে কেউ বাড়ির বাইরে বের হচ্ছে না।






মন্তব্য চালু নেই