মেইন ম্যেনু

সীতাকুন্ড থেকেই জানা যায় আতিয়া মহলের কথা

সীতাকুন্ডে কিছুদিন আগেই জঙ্গি দমনে সফল একটি অভিযান সম্পন্ন করে পুলিশ। সেখান থেকেই জানা যায় সিলেটের পাঠানপাড়ার আতিয়ামহলের কথা।

মঙ্গলবার (২৮ মার্চ) রাত সোয়া আটটায় সিলেটের জালালাবাদ ক্যান্টনমেন্টে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান সামরিক গোয়েন্দা পরিদপ্তরের পরিচালক ব্রি. জে. ফখরুল আহসান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, পুলিশ সীতাকুন্ডে জঙ্গি আস্তানায় সফল অপারেশনের পর জানতে পারে সিলেট সিটি করপোরেশনের ২৭ নং ওয়ার্ডের শিববাড়ির পাঠানপাড়া সড়কের পাশে কোনো এক বাড়িতে জঙ্গিরা লুকিয়ে রয়েছেন।

‘২৪ তারিখ রাত দেড়টার সময় পুলিশ পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে। রাত আনুমানিক সাড়ে ৪টায় তারা নিশ্চিত হন আতিয়া মহল নামে পাঁচ তলা বাড়ির নিচতলার একটি ফ্ল্যাটে জঙ্গিরা অবস্থান করছেন। অভিযান পরিচালনাকারী পুলিশ সদস্যরা সঙ্গে সঙ্গে আতিয়া মহলের নিচ তলার ছয়টি ফ্ল্যাট বাইরে থেকে বন্ধ করে দেন। ভবনের মূল প্রবেশ পথের কলাপসিবল গেটটি বন্ধ করে তালা লাগিয়ে ভবনটিকে চারদিক থেকে ঘিরে ফেলেন।’

ফখরুল জানান, পাঁচ তলা বাড়ির প্রতি তলায় ৬টি করে মোট ত্রিশটি ফ্ল্যাট রয়েছে। ঘটনার সময় ২৮টি ফ্ল্যাটে বাসিন্দারা তাদের পরিবার নিয়ে বসবাস করছিলেন। জঙ্গিরা পুলিশ বাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে তাদেরকে লক্ষ্য করে গ্রেনেড ছুড়ে মারেন।

সিলেট পুলিশ বাহিনী জঙ্গিদের সক্ষমতা ও ২৮টি পরিবারের নিরাপত্তা ঝুঁকি বিবেচনা করে তাদের বিশেষ দক্ষতা সম্পন্ন সোয়াট’র সহায়তা চায়। একই সঙ্গে বাড়িটিকে নিশ্ছিদ্রভাবে ঘিরে রাখে। এসময় ভবনের বাসিন্দারা আতঙ্কিত হয়ে নিজ নিজ ফ্ল্যাটে দরজা-জানালা বন্ধ করে যতোটুকু সম্ভব নিরাপদে থাকার চেষ্টা করেন।






মন্তব্য চালু নেই