মেইন ম্যেনু

সিরিয়াল ধর্ষণকারীর বসবাস নিয়ে বিতর্ক

ইভানস হুবার্ট নামে এক সিরিয়াল ধর্ষণকারীর বসবাস নিয়ে বেশ ঝামেলার সৃষ্টি হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলস অঙ্গ রাজ্যের ক্যালিফোর্নিয়ায়। সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়ার সান্তা বারবারার একটি আদালত হুবার্টকে ক্যালিফোর্নিয়ার একটি প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাস করার নির্দেশ দিলে এই সমস্যার সৃষ্টি হয়।

৬৩ বছর বয়স্ক হুবার্ট ১৯৭১ সালে থেকে ৮২ সালের ৪০ জন নারীর উপর হামলা ও ধর্ষণের কথা স্বীকার করেন। তবে পুলিশের ধারণা তার আক্রমণের শিকার নারীর সংখ্যা ১০০ এর কাছাকাছি। এসব অপরাধের দায়ে তাকে ১৬ বছরের কারাদণ্ড দেন আদালত। ১৯৯০ সালে প্যারোলে মুক্তি পাওয়ার দুই মাস পর আবারও এক নারীর উপর হামলা করায় ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত জেল খাটতে হয় তাকে। জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর তাকে একটি সরকারি মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানকার চিকিৎসকরা সম্প্রতি তাকে মুক্তি দেয়ার ঘোষণা দেন।

ক্যালিফোর্নিয়ার আইন অনুযায়ী শিশুদের বসবাস কিংবা আনাগোনা আছে এমন স্থানের ২০০০ ফুটের মধ্যে যৌন হয়রানীর দায়ে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বসবাস করার সুযোগ নেই। এ কারণে ক্যালিফোর্নিয়ার প্রত্যন্ত অঞ্চলে হুবার্টকে বসবাস করার নির্দেশ দেন আদালত।

আদালতের এই সিদ্ধান্তে সেখানকার মানুষ ক্ষুব্ধ। লস অ্যাঞ্জেলের সরকারি কৌসুলি জ্যাকি লেসি এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে মাসব্যাপী আইনি লড়াই করে হেরে যান। তিনি বলেন, ‘আদালতের এই সিদ্ধান্তে আমরা হতবাক। এখন আমরা তার আগমনের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করছি। তার থাবা থেকে লস অ্যাঞ্জেলসের মানুষদের রক্ষা করার জন্য আমাদের সাধ্যের মধ্যে যা করা সম্ভব তাই করবো।’

মামলার বিচারক গিলবার্ট ব্রাউন জানান, ‘রায় দেওয়ার আগে এ সংক্রান্ত সকল নথিপত্র, পিটিশন এবং ইমেইল সব কিছুই ভালভাবে দেখেছি।’

রাজ্যের সুপারভাইজার মাইকেল অ্যান্টোনোভিচ বলেন, ‘এটা জননিরাপত্তার ক্ষেত্রে অত্যধিক হুমকি’।

৭ জুলাই মুক্তির পর থেকে হুবার্টের পায়ের গোড়ালিতে একটি জিপিএস ব্রেসলেট থাকবে যার কাজ হবে হুবার্টের অবস্থান নির্দেশ করা।






মন্তব্য চালু নেই