মেইন ম্যেনু

সাতক্ষীরা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস সাইনবোর্ড ও জনবল আছে প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি নেই

সাতক্ষীরা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সাইন বোর্ড ও জনবল ছাড়া প্রয়োজনীয় কোন যন্ত্রপাতি নেই। ফলে শুধুমাত্র তথ্য প্রদান ছাড়া আর কোন কার্যক্রম নেই। শহরের রেজিস্ট্রি অফিস এলাকায় সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডাঃ আ.ফ.ম রুহুল হকের একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে বাড়ির প্রধান ফটকে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে জনবল নিয়োগ দিলেও আজও পর্যন্ত কোন কোন কার্যক্রম শুরু হয়নি। সরজমিনে অফিসে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকটি টেবিল ও চেয়ার ছাড়া আর কোনও মালামাল নেই। এছাড়া ১০জন কর্মকর্তা/কর্মচারী থাকার কথ্য থাকলেও বর্তমানে আছে ৭জন। অফিসে প্রধান কর্মকর্তা হিসাবে আছেন শেখ মাহবুর রহমান। এছাড়া ১. ফারুক হোসেন, এ্যাকাউন্টিং। ২. নিউটন বড়–য়া, রেকর্ড কিপার। ৩. মোঃ সাইফুল ইসলাম, অফিস সহকারী। ৪. এ.এইচ.এম সাইফুল লতিফ, ডাটা এন্টি অপারেটর। ৫. আনোয়ার, এমএলএসএস। ৫. ওদিদুর রহমান, নৈশ্য প্রহরী। ৬. মোশাররফ হোসেন, ঝাড়–দার। অফিস স্টাফরা প্রতি মাসে সঠিক সময়ে বেতন পাচ্ছেন। তবে অফিসের ভবন পাহারা দেওয়া ও তথ্য প্রদান ছাড়া অফিসে কোনও কাজ নেই নিয়োগকৃতদের। অফিস সূত্রে জানা যায়, প্রতিমাসে ৩২ হাজার টাকা অফিস ভাড়া হিসাবে এই বাড়িটা ভাড়া নিয়ে আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস করা হয়। মেশিনপত্র ও পাসপোর্ট তৈরি সরঞ্জাম না থাকায় আমাদের অফিসে কোনও প্রকার কার্যক্রম নেই। অফিসে শুধু ৭ জন লোকবল ও প্রয়োজনীয় কিছু আসবাবপত্র ছাড়া কোন যন্ত্রপাতি নেই।

পাসপোর্ট অফিস,সাতক্ষীরা
১. প্রয়োজনী কোন যন্ত্রপাতি নেই। কম্পিউটার নেই। শুধুমাত্র অফিস পরিচালনার জন্য কিছু আসবাবপত্র রয়েছে।
২. মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট দেয়া হয়না।
৩. থ্রি ফেইজ বিদ্যূৎ ব্যবস্থার প্রক্রিয়া চলমান তবে এখনও পর্যন্ত ২ ফেইজ।
৪. অন লাইনে ফরম পুরণের সুযোগ নেই।
৫. অফিস ভাড়া ৩২ হাজার টাকা।
৬. কর্মকর্তা/কর্মচারী ১০ জন। বর্তমানে আছে ৭ জন।
৭. মাসে ঘরভাড়া ও বেতন বাদে আনুসাঙ্গিক ৪ হাজার টাকা খরচ।
৮. সবমিলিয়ে মোট খরচ (পরিবর্তিত) ১ লাখ ৬ হাজার (বেতনসহ)।
৯. কর্মকর্তার নাম : শেখ মাহবুর রহমান, ডিএডি
১০. কর্মচারীদের নাম : ১. ফারুক হোসেন, এ্যাকাউন্টিং। ২. নিউটন বড়–য়া, রেকর্ড কিপার। ৩. মোঃ সাইফুল ইসলাম, অফিস সহকারী। ৪. এএইচএম সাইফুল লতিফ, ডাটা এন্টি অপারেটর। ৫. আনোয়ার, এমএলএসএস। ৫. ওদিদুর রহমান, নৈশ্য প্রহরী। ৬. মোশাররফ হোসেন, ঝাড়–দার।






মন্তব্য চালু নেই