মেইন ম্যেনু

‘সভ্য শহর’ লন্ডনের নাইটক্লাবে বেপরোয়া এসিড হামলা

লন্ডনের এক নাইটক্লাবে ‘এসিড’ হামলায় অন্তত ১২জন আহত হয়েছে বলে জানিয়েছে এএফপি। ব্রিটিশ রাজধানী হিসেবে খ্যাত এই শহরের পুলিশ ও ফায়ার ব্রিগেড জানায়, লোকজনে ঠাঁসা ওই নাইট ক্লাবে এক ব্যক্তি শরীরে ভয়াবহ ক্ষত সৃষ্টিকারী তরল ছিটিয়ে দেয়।

ঘটনার সময়ে ওই ক্লাবে প্রায় ৬ শ মানুষ উপস্থিত ছিল।

স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড পুলিশ জানায়, আহতদের মধ্যে বিশের কোঠায় থাকা দুই পুরুষের অবস্থা গুরুতর। বাকি ১০ জন সামান্য আহত হয়েছেন। মিরর জানায়, তাদের মধ্যে ইসোবেল্লা ফ্রেজার নামে এক অস্ট্রেলিয়ান মডেল ও তার লন্ডন নিবাসী বোন প্রুই রয়েছেন। ইসোবেল্লা বোনকে দেখতে লন্ডন এসেছিলেন।

লন্ডন শহরের দমকল বিভাগের এক মুখপাত্র জানান, সোমবার ভোররাতে পূর্ব লন্ডনের ম্যাঙ্গল নামক নাইটক্লাবে ‘জ্বালাপোড়া সৃষ্টিকারী অজ্ঞাত ধরনের’ তরল ছিটিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। পরে পরীক্ষা করে দেখে গেছে এটা এসিড জাতীয় পদার্থ।

পুলিশ মনে করছে, এটা কোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বা দুর্বৃত্ত গ্রুপের কাজ নয়। নাইটক্লাবে উপস্থিত দুটি পক্ষের বাদানুবাদের জেরে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে বলে তাদের ধারণা। মারামারির একপর্যায়ে একজন পুরুষ ওই মারাত্মক তরল স্প্রে করে প্রতিপ্রক্ষের ওপর।

তবে এখন পর্যন্ত কেউ গ্রেপ্তার হয়নি।

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক সময়ে লন্ডন শহরে এসিড হামলার একাধিক ঘটনা জনমনে উদ্বেগ-আতঙ্কের সৃষ্টি করেছে। গত মাসে বিবিসি এক প্রতিবেদনে পুলিশের দেওয়া তথ্যসূত্রের ভিত্তিতে জানায়, ২০১০ সাল থেকে এ পর্যন্ত সময়ে লন্ডন শহরে ১৮০০-এর বেশি এসিড (ক্ষারজাতীয় তরল) হামলার ঘটনা ঘটেছে। ২০১৬ সালে ৪৫৪টি এসিড হামলার ঘটনা ঘটে দুনিয়া মশহুর লন্ডন শহরে। ২০১৫ সালে এই সংখ্যা ছিল ২৬১টি।

চলতি মাসের শুরুতে উত্তর লন্ডনে ভয়াবহ এসিড হামলার ঘটনায় বাবা-মাসহ ৯ বছর বয়সী এক বালক ক্ষতবিক্ষত হয়। এর মধ্যে ৪০ বছর বয়সী বাবাটি জীবনের তরে পঙ্গু ও বিকৃতাঙ্গ হয়ে পড়েন।

প্রসঙ্গত, আইন-শৃঙ্খলা, জ্ঞান-বিজ্ঞান আর সভ্য সংস্কৃতির নিরিখে দুনিয়াজুড়ে লোকজনের কাছে লন্ডন শহরের আলাদা মর্যাদা রয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিক এসব ঘটনায় খোদ লন্ডনবাসী এখন অনিরাপদ এক পরিস্থিতিতে দিন পার করছে যেন।






মন্তব্য চালু নেই