মেইন ম্যেনু

শেষ পর্যন্ত অস্কার মঞ্চে যেতে পারবেন কী বিখ্যাত এই ইরানি নির্মাতা?

সাত মুসলিম দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্র সফর নিষিদ্ধে ট্রাম্পের ঘোষণায় বিপাকে পড়েছেন অস্কারের জন্য মনোনীত ইরানি নির্মাতা আসগর ফরহাদি। ‘দ্য সেলসম্যান’ সিনেমার জন্য অস্কারে মনোনয়ন পান জনপ্রিয় এ ইরানি পরিচালক। তবে আগামী মাসে একাডেমি অ্যাওয়ার্ডের এই আসরে তিনি আদৌ অংশ নিতে পারবেন কিনা সেটা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে।

‘দ্য সেলসম্যান’ সিনেমার জন্য সেরা বিদেশি ছবির ক্যাটাগরিতে মনোনয়ন পান আসগর ফরহাদি। তবে লস অ্যাঞ্জেলসের ডলবি থিয়েটারে অনুষ্ঠিতব্য এ আয়োজনে হয়তো অংশ নিতে পারছেন না আসগর ফরহাদি। কারণ ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞার তালিকায় থাকা সাত মুসলিম দেশের আসগর ফরহাদি-র নিজ দেশ ইরানের নামও রয়েছে।

ইরাকে মার্কিন সেনাবাহিনীর সঙ্গে দোভাষীর কাজ করেছেন ৫৩ বছরের হামিদ খালিদ দারউইশ। ১০ বছর ধরে ইরাকে মার্কিন সরকারের

হয়ে কাজ করা এই ব্যক্তি স্ত্রী ও তিন সন্তান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র সফর করছিলেন। জন এফ কেনেডি বিমানবন্দর থেকে আটকের পর শনিবার বিকেলে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

টেক্সাসে থাকা স্ত্রী-পুত্রের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন হায়দার সামির আবদুল খালেক আলশাওয়ি। শুক্রবার রাতে বিমানবন্দরে তাকে আটক রাখা হয়। তিনি এখনও অভিবাসন দফতরের হেফাজতে রয়েছেন।

আদালতের মাধ্যমে দুজনের জন্যই আইনি লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন তাদের আইনজীবীরা।

ডাচ বিমান সংস্থা কেএলএম-এর প্রেস অফিসে ম্যানেল ভ্রিজেনহোয়েক বলেন, “আমরা তাদের এখানে আনতে চাই। এটা সমস্যা নয়। এটা হচ্ছে বাদবাকি দুনিয়ার ওপর যুক্তরাষ্ট্রের বেড়ে উঠা – এই মানুষগুলোকে এখানে স্বাগত নয়।” তবে ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞায় থাকা সাতটি দেশের নাগরিকরা দুনিয়াজুড়ে অন্য এয়ারপোর্টগুলোতে কেএলএম-এর সেবা উপভোগ করতে পারবেন, উড্ডয়ন করতে পারবেন।

যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে এখন পর্যন্ত ঠিক কত সংখ্যক শরণার্থীকে আটক করা হয়েছে সেটা এখনও পরিষ্কার নয়। বৈধ ভিসা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র সফরে যাওয়া ব্যক্তিদের জন্যও এটা প্রযোজ্য।

আরব-আমেরিকান বৈষম্যবিরোধী কমিটি জানিয়েছে, ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞার পর বিমানবন্দরগুলোতে বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়েছে। এরইমধ্যে বৈষম্যের শিকার গ্রিন কার্ড এবং অন্যান্য ভিসাধারী ব্যক্তিদের কল পেয়েছে সংস্থাটি।

বৈষম্যবিরোধী কমিটিতে যুক্ত আছেন আবেদ আইয়ুব। শুক্রবার রাতে টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, ‘ভিসা অস্বীকার করা হচ্ছে। বিমানবন্দরে ও বিমানে বিশৃঙ্খলার ঘটনা ঘটেছে। আজ রাতে ফেরার জন্য অপেক্ষমান গ্রিন কার্ডধারীরাও এই মুসলিম নিষিদ্ধের আওতায় পড়বেন।’






মন্তব্য চালু নেই