মেইন ম্যেনু

শিবনগরের ‘জঙ্গি আস্তানায়’ পৌঁছেছে সোয়াত

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার মোবারকপুরের শিবনগর এলাকায় ‘জঙ্গি আস্তানা’ সন্দেহে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সদস্যদের ঘিরে রাখা বাড়িটিতে অভিযানের প্রস্তুতি চলছে।

ইতিমধ্যে সোয়াতের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে। বুধবার বিকাল সোয়া ৪টার দিকে ঢাকা থেকে দুটি হেলিকপ্টার যোগে তারা সেখানে যান। তবে সোয়াতের কতজন সদস্য রয়েছেন তার জানা যায়নি।

আভিযানের পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছেছেন। এছাড়া শিবগঞ্জ ও নাচোল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুটি অ্যাম্বুলেন্সও সেখানে আনা হয়েছে।

বুধবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে বাড়িটির চারপাশ ঘিরে অবস্থান নেয় পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সদস্যরা। এরপর থেকেই থেমে থেমে বাড়িটি থেকে গুলি ও বিস্ফোরক ছোড়ার শব্দ শুনা যাচ্ছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ঢাকা থেকে সোয়াতের একটি দল সকালেই ঘটনাস্থলের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। তারা পৌঁছালেই অভিযান শুরু হবে।

পুলিশ জানিয়েছে ‘জঙ্গি আস্তানার’ বাড়ির মালিকের নাম জেন্টু হাজি। তিনি সেখানে থাকেন না। পাশেই আরেকটি বাড়িতে পরিবার নিয়ে থাকেন। তবে তার এই বাড়িটি আবু বক্কর ওরফে আবু নামের একজন প্রায় দুই মাস আগে ভাড়া নেয়। স্ত্রীকে নিয়ে সে ওই বাড়িতে ওঠে।

আইনশৃংখলা বাহিনীর ধারণা, বাড়িটিতে ৭/৮ জন থাকতে পারে। তারা সকালেই তাদের আত্মসমর্পণের জন্য আহ্বান জানায়। কিন্তু আত্মসমর্পণ না করে ‘জঙ্গিরা’ বাড়ির ভেতর থেকে গুলি ও বিস্ফোরক ছুড়ছে।

এদিকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মোবারকপুর গ্রামে ১৪৪ জারি করেছেন উপজেলা প্রশাসন। শিবনগর গ্রামের ওই ‘জঙ্গি আস্তানার’ আশেপাশের এলাকা থেকে বাসিন্দাদের নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ওই এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি এবং যানবাহন, ধারালো অস্ত্র, লাঠিসোঠা নিয়ে চলাচল নিষিদ্ধ করে মাইকিং করা হয়েছে।

পুলিশের রাজশাহী বিভাগীয় এডিশনাল ডিআইজি ইসরুল আরেফিনসহ আইনশৃংখলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলের কাছে উপস্থিত রয়েছেন।






মন্তব্য চালু নেই