মেইন ম্যেনু

শিবগঞ্জের আস্তানার চার জঙ্গির লাশ হাসপাতালে

চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জের জঙ্গি আস্তানায় সব ধরনের অভিযান শেষে আজ শুক্রবার বেলা দেড়টায় চার জঙ্গির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরে কড়া পাহরায় লাশগুলো চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয় ময়না তদন্তের জন্য।

এদিকে, জঙ্গি নেতা আবু আলীর মরদেহ তার পরিবার নেবে না বলে জানিয়েছেন তার ছোট ভাই মো. সৈবুরের স্ত্রী মোসা. রুনা বেগম।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, জঙ্গি চারজন আত্মঘাতী বোমার মারা যান। দুজনের দেহ ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। জঙ্গি আস্তানার বাড়িতে একটি অবিস্ফোরিত বোমাসাদৃশ্য বস্তু, সুইসাইড ভেস্ট, একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগজিন, চার রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়।

অন্যদিকে ক্রাইমসিন ইউনিটের কাজ শেষে শিবগঞ্জ থানা পুলিশের জব্দ তালিকা তেরির কাজ শুরু করেছে। এ ছাড়া, নিহত জঙ্গিপ্রধান আবুর পরিচয় মিললেও অপর নিহত তিন জঙ্গির নাম-পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য তাদের ছবি ঢাকার পুলিশ সদর দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে অনুমতি পাওয়া গেলে তাদের ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশ করা হবে।

ওই জঙ্গি আস্তানার বাড়ি থেকে উদ্ধার হওয়া আবুর স্ত্রীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত রাতেই রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয় বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ।

বুধবার সকাল থেকে দুই দিন ধরে ঘিরে রাখা জঙ্গিদের আত্মসমর্পণের জন্য একাধিকবার হাতমাইকে বলা হলেও তারা সাড়া দেয়নি। জঙ্গিদের ব্যাপক প্রতিরোধের মধ্যে বৃহস্পতিবার অভিযান চালায় সোয়াট। বিকালে জঙ্গি আবুর স্ত্রী সোমাইয়া বেগমকে ডান পায়ে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এর পরে উদ্ধার করা হয় আবুর চার বছরের মেয়ে সাজিদা খাতুনকে। কিন্তু ভেতরে থাকা চার পুরুষ জঙ্গি আত্মসমর্পণ না করে নিজেরা বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় এবং ঘটনাস্থলেই তারা মারা যায়।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বুধবার ভোররাতে কাউন্টার টেরোরিজমের সদস্যরা মোবারকপুর ইউনিয়নের শিবনগর এলাকার ওই বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে বিস্ফোরণ ঘটায় জঙ্গিরা। পরে পুরো এলাকা ঘিরে ফেলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পরে বাড়ির ভেতরে অবস্থানরতদের আত্মসমপর্ণের আহ্বান জানানো হলেও তাতে সাড়া দেয়নি কেউ। জনগণের নিরাপত্তার স্বার্থে ওই দিনই এলাকায় জারি করা হয় ১৪৪ ধারা। বিকেলে অভিযানে যোগ দেন ঢাকা থেকে আসা সোয়াট সদস্যরা। বুধবার সন্ধ্যায় সোয়াট সদস্যরা শুরু করেন অপারেশন ইগল হান্ট। তবে রাত নয়টার দিকে তা স্থগিত করা হয়। পরদিন সকালে দ্বিতীয়বারের মতো অপারেশন শুরু করে সোয়াট।






মন্তব্য চালু নেই