মেইন ম্যেনু

শাকিবের রংবাজের শুটিং বন্ধ করতে নোটিশ যাচ্ছে পাবনায়

গণমাধ্যমে চলচ্চিত্র পরিচালক ও শিল্পীদের ‘বেকার’ বলে সম্বোধন করায় শাকিবের ওপর চটেছেন চিত্রপরিচালকরা। তারা মনে করেন শাকিব অকৃতজ্ঞ। যে ইন্ডাস্ট্রি শাকিবকে তারকা বানিয়েছে সেই ইন্ডাস্ট্রির বিরুদ্ধে কথা বলে শাকিব অন্যায় করেছেন।

শাকিব কেন এমন মন্তব্য করলেন সেটার কৈফিয়ত না দেয়া পর্যন্ত তাকে নিয়ে শুটিং বন্ধ রাখার জন্য নোটিশ দিয়েছে পরিচালক সমিতি। গতকাল সোমবার (২৪ এপ্রিল) এক লিগ্যাল নোটিশে শাকিবকে নিয়ে ছবির নির্মাণ না করতে পরিচালকদের আহ্বান জানিয়েছে পরিচালকদের এই সমিতি।

এদিকে এই মুহূর্তে শাকিব শুটিং করছেন শামীম আহমেদ রনি পরিচালিত ‘রংবাজ’ ছবির। পাবনায় শুটিং চলছে ছবিটির। জানা গেছে, আজ মঙ্গলবার বিকেলেই এই ছবির পরিচালককে নোটিশ পাঠানো হবে ছবির কাজ বন্ধ রাখার জন্য।

চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির যুগ্ম-মহাসচিব শাহীন সুমন বলেন, “মঙ্গলবার সন্ধ্যার আগেই পাবনায় ‘রংবাজ’ ছবির সেটে পরিচালক সমিতি থেকে শাকিবকে নিয়ে শুটিং বন্ধ রাখার নোটিশ পাঠানো হচ্ছে। শাকিব যতক্ষণ পর্যন্ত তার মনগড়া মন্তব্যের জবাব না দেবে ততদিন শুটিং বন্ধ রাখতে হবে। যেহেতু রংবাজ ছবির পরিচালক শামীম আহমেদ রনি পরিচালক সমিতির সদস্য, সমিতির নির্দেশ তাকে শুনতেই হবে। নইলে সমিতি পরবর্তী ব্যবস্থা নেবে।”

তিনি বলেন, শাকিবের সঙ্গে পরিচালকদের ঝামেলার অবসান হলে আবার ‘রংবাজ’ ছবির কাজ শুরু হতে পারে। কিন্তু এর সুরাহা না হওয়া পর্যন্ত শুটিং বন্ধ রাখতে হবে।

গত সপ্তাহে পারিবারিক বিতর্কের জের ধরে একাধিক সংবাদমাধ্যমে প্রসঙ্গক্রমে শাকিব বলেন, ‘এখন যেহেতু বেশি সিনেমা হচ্ছে না, তাই বেকার লোকের সংখ্যাও একটু বেশি। পরিচালক সমিতির তালিকা দেখবেন, অনেক পরিচালক। তারা এফডিসিতে আড্ডাও মারছেন। কিন্তু কাজ করছেন কতজন? প্রযোজকের ক্ষেত্রেও দেখবেন একই অবস্থা। শিল্পীদের ক্ষেত্রেও তা-ই। অনেক শিল্পী তো নিবন্ধিত আছেন, কাজ করছেন কতজন?’

এ মন্তব্যের জের ধরেই শাকিবের ওপর ক্ষেপেছেন পরিচালকরা। অনেক সিনিয়র শিল্পীও শাকিবের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা দাবি করছেন, নানা ঝামেলা ও সমালোচনায় শাকিবের মানসিক অবস্থা বিপর্যস্ত। কিন্তু তাই বলে তিনি পুরো ইন্ডাস্ট্রিকে বেকার বলতে পারেন না। প্রতিদিনই নানা চলচ্চিত্রের শুটিং হচ্ছে।

ইন্ডাস্ট্রিতে শাকিব ছাড়া আরও অনেক জনপ্রিয় নায়ক রয়েছেন। গেল কয়েক বছরে তাদের চাহিদা তৈরি হয়েছে। তাছাড়া গত বছর থেকে হল রিপোর্ট বলছে শাকিবের চেয়ে নতুন প্রজন্মের নায়কদের চাহিদা কোনো অংশে কম নয়, বরং বেশিই বলা যায়।

শাকিবের ছবির বাজেট ও প্রচারের চাকচিক্যের তুলনায় এসব নায়করাই বেশি আশার সঞ্চার করছে ইন্ডাস্ট্রিতে। প্রযোজকরা সাহসী হচ্ছেন তাদের নিয়ে টাকা লগ্নি করতে। অনেক নতুন পরিচালক আসছেন ইন্ডাস্ট্রিতে। তারা প্রতিনিয়ত ছবিও বানাচ্ছেন। তবে শাকিব কেমন করে এ ধরনের বেফাঁস মন্তব্য করতে পারলেন।

তারা মনে করছেন, শাকিব নিজেকে কলকাতার নায়ক বানাতে গিয়ে নিজের দেশে বেকার করে ফেলেছেন। নতুন কোনো ছবি তার হাতে যাচ্ছে না। তাই ব্যক্তি হতাশা থেকে অন্যদের বেকার বলে ছোট করতে চেয়েছেন।

প্রসঙ্গত, ভারতের নায়ক বনিকে নিয়ে সম্প্রতি ‘মনে রেখো’ নামের একটি ছবি বানাচ্ছেন ওয়াজেদ আলী সুমন। রাষ্ট্রের কর ফাঁকি দিয়ে সরকারি ওয়ার্ক পারমিট ভিসা ছাড়াই বিদেশি শিল্পী নিয়ে কাজ করার অপরাধে এ ছবিটির শুটিং আটকে দেয়া হয়। বেশ অনেকদিন ধরেই অন্যায় এ বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ আসছিল পরিচালক সমিতিতে। বাধ্য হয়ে তারা সোচ্চার হন এবং বিদেশি শিল্পী নিয়ে অবৈধভাবে কাজ করা ছবিগুলোর শুটিং আটকে দেয়া হয় পুলিশ পাঠিয়ে। আটকে যায় ‘মনে রেখো’ ছবিরও কাজ। পরে রাষ্ট্রের আইন মেনেই বিদেশি শিল্পী বনিকে নিয়ে কাজ শুরু করেন ওয়াজেদ আলী সুমন।

এই বিষয়টিরও অযাচিত সমালোচনা করেন শাকিব। তিনি ওয়ার্ক পারমিটের ব্যাপারটি এড়িয়ে গিয়ে পুলিশ পাঠিয়ে কলকাতার নায়ককে হেয় করার জন্য পরিচালক সমিতির সমালোচনা করেন। ফলশ্রুতিতে নিজেই সমালোচিত হচ্ছেন এ নায়ক।






মন্তব্য চালু নেই