মেইন ম্যেনু

শপথ অনুষ্ঠানে ট্রাম্পের গায়ে বাংলাদেশি ব্রান্ড

যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। পেশায় ব্যবসায়ী ধনকুবেরের সঙ্গে রাজনীতির কোন ইতিহাস নেই। তার জন্য ব্যবহার করা পোশাক যায় বাংলাদেশ থেকে। বিখ্যাত ও ধনকুবেরদের পোশাক তৈরি করা হয় বিশেষ অর্ডারে। যা তৈরি করা হয় নির্দিষ্ট সংখ্যা ও মডেলে। বিশ্বের ধনকুবেরদের মধ্যে ট্রাম্প অন্যতম। তার পোশাকও তৈরি হয় কয়েকটি দেশে। এবার প্রেসিডেন্ট শপথ অনুষ্ঠানে তিনি যে সাদা রঙের শার্ট পড়েছেন সেটি বাংলাদেশে তৈরি হয়েছে বলে জানা গেছে।

‘মেড ইন বাংলাদেশ’ শার্ট গায়ে দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। শপথগ্রহণকালে তাঁর প্রথম পছন্দ সাদা শার্ট ও লাল টাই পরেছিলেন। তাঁর গায়ের শার্টটি বাংলাদেশের ও টাই চায়নার তৈরি বলে একটি সূত্র জানিয়েছে। গতকাল শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় দুপুরে (বাংলাদেশ সময় রাত ১১টা) কংগ্রেস ভবন ক্যাপিটল হিলের সামনে ট্রাম্পকে শপথবাক্য পাঠ করান সেদেশের সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জন রবার্টস। ট্রাম্পের আগে মাইক পেন্স ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেন। তাঁকে শপথবাক্য পাঠ করান সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি ক্ল্যারেন্স থমাস।

নির্বচানী প্রচারণার সময়েও বাংলাদেশে তৈরি পোশাক ব্যবহার করেছেন তিনি।

একটি সমাবেশে এর আগের মানুষদের উদ্দেশ্যে ট্রাম্প বলেছিলেন, মনে আছে, একসময় আমরা ‘মেইড ইন দ্য ইউএসএ’ শব্দটি দেখতে পেতাম? সর্বশেষ আপনি কবে এমনটি দেখেছেন?’ এরপরই ‘লেইট নাইট উইথ ডেভিড লেটারম্যান’ অনুষ্ঠানের একটি ফুটেজ চলতে দেখা যায়। ওই অনুষ্ঠানের একটি পর্বে ট্রাম্প উপস্থিত হয়েছিলেন। উপস্থাপক একপর্যায়ে ট্রাম্পকে জিজ্ঞেস করেছিলেন, ‘তাঁর পরনের শার্ট ও টাই কোথায় বানানো হয়েছে? ট্রাম্প প্রথমে উত্তর দেন যে, তিনি জানেন না।

কিছুক্ষণ পরই উপস্থাপক ডেভিড লেটারম্যান আশপাশের কর্মীদের একই প্রশ্ন জিজ্ঞেস করেন। তখন কর্মীরা বলেন, টাই বানানো হয়েছে চীনে। আর শার্ট বানানো হয়েছে বাংলাদেশে। প্রত্যুত্তরে ট্রাম্প বলেন, ‘ভালো। আমরা মানুষের কর্মসংস্থান করি বাংলাদেশে। ‘ ইয়াহু নিউজের একটি প্রতিবেদনে বলা, ‘ট্রাম্পের বহু পণ্য মূলত তৈরি হয় এশিয়া ও দক্ষিণ আমেরিকায়।






মন্তব্য চালু নেই