মেইন ম্যেনু

লালমনিরহাট ধর্ষণ দৃশ্য মোবাইলে ধারণ অতঃপর বিয়ে

লালমনিরহাট ধর্ষণ দৃশ্য মোবাইলে ধারণ অতঃপর বিয়ের ঘটনায় শহর জুড়ে আলোচনার ঝড় উঠেছে। নিজেকে রোমান শাহরিয়া লিসনের স্ত্রী দাবী করে রোমানের বাড়ীতে অনশন করছেন আসমা। এ ঘটনা লালমনিরহাটের পাটগ্রামের কুচলিবাড়ী ইউনিয়নের বসুনিয়া টারী গ্রামের।

ঘটনাটি এলাকায় বেশ চাঞ্চল্য সৃষ্টি করলেও নিরব রয়েছে পুলিশ। এদিকে রোমানের পরিবারের লোকজন আসমাকে বউ হিসাবে গ্রহন না করে উল্টে পিটিয়ে আহত করেছে। এ নিয়ে ক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী ঘিরে রেখেছে রোমানের বাড়ী। জানা গেছে, পাটগ্রামের কুচলিবাড়ী ইউনিয়নের মশিউর রহমানের পুত্র রোমান শাহরিয়া লিসন। তিনি পেষায় একজন স্বাস্থ্য পরিদর্শক।

র্দীঘদিন ধরে রোমানে সঙ্গে প্রেমের সর্ম্পক স্কুল শিক্ষকের কন্যা আসমার। গত প্রাইমারী সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন পত্র দেয়ার কথা বলে আসমাকে লালমনিরহাটের উত্তরা আবাসিক হোটেলে নিয়ে আসে রোমান। রাতে তারা এক সঙ্গে অবস্থান করেন। আসমার অভিযোগ, ওই রাতে রোমান তাকে রাতভর র্ধষণ করে। এবং তা মোবাইলে ধারণ করে। পরের দিন লস্পট রোমান ধর্ষণের ভিডিও চিত্র বন্ধুদের দেখায়।

এ নিয়ে চলে হইচই। রোমান ও আসমার এ ভিডিও টক অব দ্যা টাউনে পরিনত হয়। পরে রোমানকে বিয়ের কথা বললে, প্রথমে রাজী হয় না। পরে হাতিবান্ধা উপজেলার বড়খাতা ইউনিয়নে কাজী অফিসে গিয়ে গত জুন মাসে ৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা দেন মোহরানায় বিয়ে করে রোমান ও আসমা।

কিন্তু বিয়ের ২ মাস পার হলেও আসমাকে বাড়ীতে তুলতে টালবাহানা করে রোমান। রোমান নতুন বিয়ের জন্য প্রস্তুতি নিলে বউয়ের দাবী নিয়ে রোমানের বাড়ীতে গত দুই দিন ধরে অনশন করছেন আসমা।

এদিকে রোমানের বাড়ির লোকজন আসমাকে পিটিয়ে আহত করেছে। গ্রামের লোকজন বাড়িটি ঘিরে ফেললে রোমানের বাড়ীর লোকজন বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। ইউনিয়নের মেম্বার শফিকুল ইসলাম জানান, বিয়ের কাবিন নামা সঠিক হলে বউ হিসেবে গ্রহণ করা উচিৎ।

এ ব্যাপারে পাটগ্রাম থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তবে কোন পদক্ষেপ নেয় নি পুলিশ বলে আসমার অভিযোগ। এ ব্যাপারে পাটগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ আমিরুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায় নি।






মন্তব্য চালু নেই