মেইন ম্যেনু

রাজনাথ স্বরাষ্ট্রে, সুষমার হাতে বিদেশ মন্ত্রক, জেটলিকে অর্থ ও প্রতিরক্ষা, ভারসাম্যের মন্ত্রিসভা গড়লেন মোদি

দিলীপ মজুমদার (কলকাতা): প্রত্যাশিতই ছিল৷ সেইমতো মন্ত্রিসভা গঠনে নরেন্দ্র মোদির পূর্ণ কর্তৃত্বেরই ছাপ দেখা গেল৷ শরিক দলগুলির ওপর বিন্দুমাত্র নির্ভরতা না থাকায় মন্ত্রিসভায় তাদের কাউকেই বাড়তি গুরুত্ব দিলেন না মোদি৷ যাঁদের মাধ্যমে তাঁর পরিকল্পনার দ্রুত বাস্তবায়ন সম্ভব, তাঁদের হাতেই দিলেন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের ভার৷ এরইসঙ্গে মন্ত্রিসভার ওপর পরিবারতন্ত্রের ছাপও পড়তে দিলেন না তিনি৷

এদিন মোদি ছাড়া শপথ নিলেন আরও ৪৫ জন মন্ত্রী৷ তার মধ্যে ২৩ জন পূর্ণমন্ত্রী, ১০ জন স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিমন্ত্রী এবং ১২ জন প্রতিমন্ত্রী৷

লখনউয়ের সাংসদ রাজনাথ সিংহ হলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷ বিদিশার সুষমা স্বরাজ বিদেশমন্ত্রী রাজ্যসভার সাংসদ অরুণ জেটলির হাতে দু’টি মন্ত্রক৷ অর্থ ও প্রতিরক্ষা৷

আরেক রাজ্যসভার সাংসদ বেঙ্কাইয়া নায়ডুর হাতে নগরোন্নয়ন মন্ত্রক৷ নাগপুর কেন্দ্র থেকে জয়ী নিতিন গডকড়ী হলেন ভূতল পরিবহণ ও জাহাজমন্ত্রক৷বেঙ্গালুরু উত্তরের সাংসদ সদানন্দ গৌড়া হলেন রেলমন্ত্রী৷ ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের দায়িত্ব পেলেন রামবিলাস পাসোয়ান ঝাঁসি থেকে জয়ী উমা ভারতীর হাতে জলসম্পদ উন্নয়ন ও গঙ্গা অভিযান মন্ত্রক৷

রাজ্যসভার সাংসদ নাজমা হেপতুল্লা হলেন সংখ্যালঘুউন্নয়ন মন্ত্রী৷ বীড় কেন্দ্র থেকে জিতে গ্রামোন্নয়নমন্ত্রী হলেন গোপীনাথ মুণ্ডে৷ হাজিপুর থেকে জিতে ক্রেতা সুরক্ষা মন্ত্রকের দায়িত্ব পেলেন রামবিলাস পাসোয়ান৷ উত্তরপ্রদেশের কানপুর থেকে জিতে ভারী শিল্প মন্ত্রক পেলেন কলরাজ মিশ্র৷ উত্তরপ্রদেশের পিলভিটের বিজেপি সাংসদ মেনকা গাঁধীর হাতে নারী ও শিশু কল্যাণ মন্ত্রক দেওয়া হয়েছে৷ বেঙ্গালুরু দক্ষিণের সাংসদ অনন্ত কুমার হলেন সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী৷ সার মন্ত্রকও তাঁর হাতে৷ বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ রবিশঙ্কর প্রসাদকে দেওয়া হয়েছে তিনটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের দায়িত্ব৷ আইন, টেলিকম ও তথ্য-সম্প্রচার৷ ভিজিয়ানাগ্রামের টিডিপি সাংসদ অশোক গজপতি রাজু হলেন অসামরিক বিমান পরিবহণ৷ রায়গড় থেকে জিতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পমন্ত্রী হলেন অনন্ত গীতে৷ ভাটিন্ডার শিরোমনি অকালি দলের সাংসদ হরসিমরত কৌরের হাতে খাদ্য প্রক্রিয়াকরণমন্ত্রক৷ মোদির মন্ত্রিসভায় জায়গা পেয়েছেন গ্বালিয়রের সাংসদ নরেন্দ্র সিংহ তোমর৷ সুন্দরগড়ের সাংসদ জুয়েল ওঁরাও হলেন আদিবাসী উন্নয়ন মন্ত্রী৷ পূর্ব চম্পারণ কেন্দ্র থেকে জিতে কৃষিমন্ত্রী হলেন রাধামোহন সিংহ৷

মোদির দায়িত্ব বন্টন প্রসঙ্গে রাজনৈতিক মহলের বক্তব্য, ইউপিএ আমলে কংগ্রেসকে সরকার চালাতে অন্য শরিকদের ওপর নির্ভর করে থাকতে হত৷ তাই কখনও তৃণমূল, কখনও ডিএমকে, আবার কখনও ন্যাশনাল কনফারেন্সকে বাড়তি গুরুত্ব দিতে হত৷ রেল, টেলিকমের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রক ছাড়তে হত তাদের জন্য৷ কিন্তু নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করায় মোদির সেই বাধ্যবাধ্যকতা নেই৷ মন্ত্রিসভাতেও তার স্পষ্ট ছাপ দেখা গেল৷ এনডিএ শরিক লোকজনশক্তি পার্টির প্রধান রামবিলাস পাসোয়ানকে মোদি পূর্ণমন্ত্রী করলেন ঠিকই৷ কিন্তু, তাঁকে ক্রেতা সুরক্ষার মতো অপেক্ষাকৃত কম গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রক দেওয়া হল৷ আরেক শরিক শিবসেনাকেও একজনমাত্র পূর্ণমন্ত্রী দিলেন মোদি৷ অনন্ত গীতেকে মাঝারি ও ক্ষুদ্র শিল্প মন্ত্রকের দায়িত্ব দেওয়া হল৷ শরিক তেলুগু দেশমের অশোক গজপতি রাজুকে অসামরিক বিমান পরিবহণমন্ত্রী করলেন মোদি৷

তাঁর মন্ত্রিসভার ওপর যাতে পরিবারতন্ত্রের ছাপ না পড়ে সেজন্যও কৌশলী পদক্ষেপ করেছেন মোদি৷ এবারের লোকসভা ভোটে বিজয়ী হওয়া সত্ত্বেও প্রয়াত কেন্ত্রীয় মন্ত্রী প্রমোদ মহাজনের মেয়ে পুনম মহাজন, প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যশবন্ত সিনহার ছেলে জয়ন্ত সিনহা, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজের ছেলে দুষ্ম্যন্ত সিংহ, ছত্তীসগঢ়ের মুখ্যমন্ত্রী রমন সিংহের ছেলে অভিষক সিংহ-এর জায়গা হয়নি মোদি মন্ত্রিসভায়৷

নিজের মন্ত্রিসভায় মহিলাদেরও যথাযথ প্রতিনিধিত্ব দেওয়ার চেষ্টা করেছেন মোদি৷ তাঁর মন্ত্রিসভায় সাতজন মহিলা রয়েছেন৷ তার মধ্যে সুষমা স্বরাজ, উমা ভারতী, মেনকা গাঁধী, নাজমা হেপতুল্লা এবং স্মৃতি ইরানি, হরসিমরত কউর পূর্ণমন্ত্রী৷ নির্মলা সীতারমণ বাণিজ্য মন্ত্রকের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে

এছাড়াও তাঁর টিমের সদস্য হিসাবে পরিচিত একাধিক তরুণ মুখকেও মোদি তাঁর মন্ত্রিসভায় জায়গা দিয়েছেন৷ এর মধ্যে

স্মৃতি ইরানি, পীযূষ গোয়েল, নির্মলা সীতারমণ, প্রকাশ জাভড়েকর ধর্মেন্দ্র প্রধান, জিতেন্দ্র সিংহ রয়েছেন৷ এছাড়াও ভোটের ঠিক মুখে বিজেপিতে যোগ দেওয়া প্রাক্তন সেনাপ্রধান ভি কে সিংহকেও মন্ত্রিসভায় জায়গা দিয়েছেন মোদি৷ তবে, তাঁকে প্রতিরক্ষা না দিলেও তাঁর অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগাতে বিদেশ এবং উত্তর পূর্ব উন্নয়ন মন্ত্রকের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীর দায়িত্ব দিয়েছেন মোদি৷ একইভাবে পেশায় চিকিত্‍সক হর্ষবর্ধনকে স্বাস্থ্যমন্ত্রী করেছেন মোদি৷






মন্তব্য চালু নেই