মেইন ম্যেনু

রাজধানীতে কালবৈশাখী

আকাশ কালো করে বুধবার ঢাকার ওপর দিয়ে বয়ে যায় কালবৈশাখী। দমকা হাওয়ার সঙ্গে চলতে থাকে মুষলধারে বৃষ্টি। ডুবে যায় প্রধান প্রধান সড়কসহ অলিগলি। এ কারণে সাধারণ মানুষকে, বিশেষ করে কর্মস্থল থেকে ঘরফেরত মানুষকে বেশ ভোগান্তি পোহাতে হয়।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ আরিফ হোসেন বলেন, আজ বেলা তিনটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টায় রাজধানীতে বৃষ্টি হয়েছে ৩৩ মিলিমিটার।

কালবৈশাখী ও বৃষ্টি কেবল ঢাকায় নয়, আশপাশের বেশ কয়েকটি জেলায় হয়েছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, দেশের উত্তর, পূর্ব ও মধ্যাঞ্চলে কালবৈশাখী বয়ে গেছে। দুপুরের দিকে ঝড় হয় পাবনা, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ফরিদপুর, কুমিল্লা, চাঁদপুর জেলায়। এরপর সন্ধ্যার দিকে ঝড় শুরু হয় ফেনী, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম ও রাঙামাটি জেলায়।

বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে সড়ক। তাই ফুটপাত ধরে সাবধানে চলতে হচ্ছে পথচারীদের। ছবিটি লালমাটিয়া এলাকা থেকে তোলা। ছবি: সাবিনা ইয়াসমিন

বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে সড়ক। তাই ফুটপাত ধরে সাবধানে চলতে হচ্ছে পথচারীদের। ছবিটি লালমাটিয়া এলাকা থেকে তোলা। ছবি: সাবিনা ইয়াসমিন

দুদিন ধরে ঝড়-বৃষ্টিতে তাপমাত্রাও বেশ কমে এসেছে। আজ রাজধানী ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ৩০ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল মঙ্গলবার যা ছিল ৩২ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে খুলনা, সাতক্ষীরা, যশোর জেলায় আবহাওয়া কিছুটা উষ্ণ ছিল।

এদিকে বাতাসের চাপ বেশি থাকায় উত্তাল রয়েছে বঙ্গোপসাগর। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, এ কারণে চট্টগ্রাম, মোংলা, পায়রা সমুদ্রবন্দর ও কক্সবাজারকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্কসংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই