মেইন ম্যেনু

যে বিয়ে সিনেমাকেও হার মানালো!

ভারতের একটি বিয়ে অনুষ্ঠান নাটকীয় পরিবর্তনে সিনেমার কাহিনীকেও হার মানিয়েছে। দেশটির উত্তর প্রদেশে কনে পক্ষের খাবারের আয়োজনে কাবাব-কোরমা বা বিরিয়ানি ছিল না। সব পদই নিরামিষ। তা দেখে ক্ষুব্ধ বর বিয়ে না করেই চলে যায়। পরে গ্রাম পঞ্চায়েতের সিদ্ধান্তে বিয়ে করতে বলা হলে বেঁকে বসেন কনে।

এনডিটিভি জানায়, কুলহেদি গ্রামে পরিবেশন করা সব খাবার নিরামিষ দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে বিয়ের আসর ছেড়ে চলে যায় বর রিজভান ও তার পরিবার। কনে নাগমার পরিবার জানায়, উত্তর প্রদেশে অবৈধ কসাই খানা বন্ধে কঠোর অভিযানের কারণে তারা মাংস কিনতে পারেনি।

উত্তর প্রদেশের নতুন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ দায়িত্ব গ্রহণের পরপরই অবৈধ কসাইখানা নিষিদ্ধ করে এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। যে কারণে সেখানে মাংস জাতীয় খাবার অনেকটাই দুঃষ্প্রাপ্য হয়ে উঠেছে। নাগমার পরিবার রিজভানের পরিবারকে বিষয়টি বোঝানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়।

এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে বিবাদ বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে তা হাতাহাতি হওয়র উপক্রম হয়ে পড়ে। সমাধানের জন্য শেষ পর্যন্ত গ্রাম পঞ্চায়েতের সাহায্য চাওয়া হয়। গ্রাম পঞ্চায়েত সবকিছু জেনে রিজভানকে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত দেয়। এই সিদ্ধান্ত মেনে বিয়ের আসরে ফেরেন বর রিজভান।

ঘটনা এখনেই শেষ হতে পরত। কিন্তু সবাইকে অবাক করে দিল কনে নাগমা। তিনি এবার বেঁকে বসেন। জানান দিলেন, এই বরের সঙ্গে বিয়েতে তার মত নেই। জোর করলেও বিয়ের আসরে নামবেন না তিনি।

নাটকের শেষ কিস্তি আরো আছে। তার পরের দৃশ্য যেন সিনেমার কাহিনীকেও হার মানায়! বিয়ের অনুষ্ঠানে আসা এক অতিথি নাগমাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। কনে তা সানন্দে গ্রহণ করেন, ওই আসরেই তাদের বিয়ে হয়ে যায়।

বিয়ে করতে আসা রিজভান ও তার আত্মীয়দের মুখ ভার করে ফিরে যেতে হয়। বেচারা রিজভানকেও ভগ্ন হৃদয়ে বউ ছাড়াই ফিরতে হয়।






মন্তব্য চালু নেই