মেইন ম্যেনু

মৃত্যুকূপে জীবনের ডাক: একসঙ্গে চার সন্তান প্রসব করলেন ফিলিস্তিনি মা

একসঙ্গে চার সন্তান প্রসব করলেন ফিলিস্তিনি মা। চারদিকে যখন বিমান থেকে পড়া বোমা আর বিস্ফোরিত মাইনের শব্দ, শিয়র ধরে হেঁটে যাওয়া লাশের মিছিল আর যুদ্ধবিরতি পণ্ডের ভগ্ন স্বপ্ন, তখন একসঙ্গে চারটি নতুন প্রাণ জন্ম দিয়ে মৃত্যুকূপে জীবনের ডাক পাঠালেন এক ফিলিস্তিনি মা। মায়ের নামটি জানা যায়নি এখনও অব্দি, শুধু জানা গেছে, চার সন্তানের ৩ জন পুত্রশিশু ও ১ জন মেয়েশিশু, এবং তারা ভালো আছে।

ফিলিস্তিনি ডাক্তার ড. বাসেল আবুওয়ারদা তার টুইটবার্তায় প্রথম শিশুদের ছবি প্রকাশ করেন। মাকে ঘিরে হাসপাতালের সকলেই ভীষণ আনন্দিত।

উল্লেখ্য, ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের অন্যায় হামলা ও কৃত যুদ্ধাপরাধে ইতোমধ্যে প্রায় সতের শ’ মানুষ প্রাণ হারিয়েছে যাদের সিংহভাগ বাড়িতে অবস্থানকারী মা ও শিশু।

পেটে চার সন্তান বহন করে এই মাও এতোদিন ছুটে বেড়িয়েছেন নিরাপত্তার খোঁজে। বুধবার প্রসবের পর তিনি হয়ত স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন, কিন্তু তা সাময়িক। কারণ, জন্মের পর এখন এ নরকে নতুন এ অতিথিদের বাঁচিয়ে রাখাটা এ মুহূর্তে পৃথিবীর বুকে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। কারণ ফিলিস্তিনে এখন খাবার নেই, পানি নেই, সহায়তাকারী দলগুলো পৌঁছুতে পারছে না আর্ত স্থানগুলোয়।

মাতৃগর্ভে একসঙ্গে চার সন্তান ধারণ একটি দুর্লভ ঘটনা। একসঙ্গে চার, আট এমনকি তেরো সন্তান জন্ম দেয়ার তথ্য নথিভুক্ত আছে, তবে এসব ক্ষেত্রে মাকে বাঁচানো খুব কঠিন হয়ে যায়। ফিলিস্তিনে মা ও শিশুরা গণহারে মারা পড়েছে, এখন এ মা ও তার শিশুদের যদি বাঁচানো যায়, তবে তা যুদ্ধের বিপরীতে স্বান্তনাসূচক দারুণ জবাব হতে পারে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই