মেইন ম্যেনু

মুখোশ উন্মোচন করুন এখনই: দুদককে টিআইবি

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) উদ্দেশে বলেছেন, ‘যদি মুখোশ উন্মোচন করার কিছু থাকে, তবে এখনই করুন। কালক্ষেপণের প্রয়োজন নেই। যদি দুদককে হয়রানির উদ্দেশ্য হয়, তাহলে দ্বিতীয়বার ভাবতে বসবো। কথা বলার মৌলিক অধিকার সবারই আছে। এ অধিকার হরণ করার বা খর্ব করার ক্ষমতা কাউকে দেয়া হয়নি।’

বৃহস্পতিবার মহাখালী হোটেল অবকাশে ‘জাতীয় শুদ্ধতার কৌশল: বাস্তবায়ন ও অগ্রগতি’ শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য তুলে ধরে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

’তিনি বলেন, ‘আমাদের মুখোশ নেই, আমাদের মুখ আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দুদক কমিশনারের বক্তব্য স্ববিরোধী। তিনি বলেছিলেন (দুদক কমিশনার) টিআইবি দুদকের ওয়াচ ডগ। আমরাও নিজেদের দুদকের সহায়ক হিসেবে মনে করি। টিআইবি যদি দুদকের সহায়ক হয়, তাহলে ওয়াচ ডগ হিসেবে তার কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করবে।’

ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘বাংলাদেশে দুদক প্রতিষ্ঠার পেছনে টিআইবির ভূমিকা ছিল। আমরাই প্রথম দুদক প্রতিষ্ঠার দাবি তুলেছি, আমরাই খসড়া আইন উত্থাপন করেছি এবং তা বাস্তবায়নের জন্য সবসময় কথা বলেছি।’

দুদক কমিশনারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, ‘গতকাল তিনি (দুদক কমিশনার) যে অনুষ্ঠানে কথা বলেছেন, সে অনুষ্ঠান আয়োজনের আগে টিআইবিকে তিনবার চিঠি দিয়েছিল। অনুষ্ঠানে যাদেরকে পুরস্কৃত করা হয়েছিল তাদের নির্বাচিত করতে তারা টিআইবির সহায়তা নিয়েছে।’

টিআইবির স্বচ্ছতা প্রসঙ্গে নির্বাহী পরিচালক বলেন, ‘টিআইবি বিদেশি অর্থায়নে চলে এটা গোপন কিছু নয়। আমাদের সব কর্মকাণ্ড ও ব্যয়ের বিবরণ বাংলাদেশ সরকার অনুমোদন দিয়েছে। বিদেশি অর্থায়ন নিয়ে তার (দুদক কমিশনার) এতো অনীহা হলে সরকারকে কেন বলছেন না বিদেশি অর্থায়নে সরকারি প্রকল্প বন্ধ করতে এবং দুদক কেন বিদেশি অর্থায়নে কাজ চালাচ্ছে।’

উল্লেখ্য, বুধবার দুপুরে রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে দুদক আয়োজিত শ্রেষ্ঠ মহানগর-জেলা-উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে দুদক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেন, টিআইবি উদ্দেশ্যমূলকভাবে দুদকের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাচ্ছে, এমন একদিন আসবে, যেদিন তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে দ্বিধাবোধ করা হবে না।






মন্তব্য চালু নেই