মেইন ম্যেনু

মিষ্টি দম্পতি হৃদয়-সুজানার বিয়ে ও দাম্পত্যের আনন্দঘন কিছু কথা

সুজাউল হক : দীর্ঘ চার বছরের প্রতীক্ষার পর অবশেষে প্রেমিকা মডেল সুজানা জাফরকে সম্প্রতি বিয়ে করেছেন এ প্রজন্মের জনপ্রিয় গায়ক ও সঙ্গীত পরিচালক হৃদয় খান। উল্লেখ্য যে, কিছুদিন আগেই সুজানা প্রেমে সম্মতি জানিয়েছিলেন হৃদয়কে। সেই সময়ে হৃদয় ফেসবুকে দারুণ রোমান্টিক একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলেন সুজানা ও তাঁদের প্রেমকে ঘিরে। পরবর্তীতে ঈদের ঠিক পড়ি অনুষ্ঠিত হয় এই মিষ্টি দম্পতির আকদ। তবে অনুষ্ঠান এখনো বাকি। জানা গিয়েছে এই বছরই আনুষ্ঠানিকভাবে সুজানাকে ঘরে তুলবেন হৃদয়।

দীর্ঘ ৪ বছর যাবত কেবল বন্ধুই ছিলেন তাঁরা। হৃদয় অবশ্য সুজানাকে মনের কথা বহু আগে জানালেও সুজানা সাড়া দেননি। আর নেপথ্যে কারণ হিসাবে ছিল হৃদয়ের চাইতে সুজানার বয়সে অনেকটা বড় হওয়া, সুজানার আগে একটি বিয়ে ও ডিভোর্স, পারিবারিক অসম্মতি সহ অনেক কিছুই। সবশেষে সকল ভয় ও বাঁধা অতিক্রম করে বিয়ের বন্ধনে এক হয়েছে এই জুটি। আর তাই বুঝি সুজানা সম্মতি জানাতেই বিয়েতে আর দেরি করেননি হৃদয়।
বিয়ের পর প্রথম ঘুরতে যাওয়ার দিনের সেলফি এই দুটি। হৃদয় আপডেট দিয়েছিলেন নিজের ফেসবুকেই।

‘এত দিন শুনেছি, বিয়েতে কবুল বলার সময় মেয়েরা কাঁদে! কিন্তু সুজানাকে কবুল বলার সময় আমার নিজের চোখেই পানি চলে এসেছিল। খুব ইচ্ছা করছিল মন ভরে কাঁদতে! এই কান্না আসলে সুখের কান্না।’ বিয়ের পর এক সাক্ষাতকারে বলেছিলেন হৃদয় খান।

পরিবারের সবাই আন্তরিকভাবে গ্রহণ করেছেন সুজানাকে। অতীতকে ভুলে এই দম্পতি শুরু করেছেন নতুন অধ্যায় সম্প্রতি গিয়েছেন মধুচন্দ্রিমা জাপনে।

হলুদের আয়োজন ছিল একদম সাদামাটা ও ঘরোয়া।

ঈদের ঠিক পরপরই সুজানার মিরপুরের বাসায় ১আগস্ট শুক্রবার সন্ধায় দুই পরিবারের ঘনিষ্ঠজনের উপস্থিতি আকদ সম্পন্ন হয়।

বিয়ে করেই হৃদয় খান সুজানাকে নিজের বাসায় নিয়ে আসেন। ফেসবুকে ছবিও আপলোড করেন তিনি, সাথে ক্যাপশন লেখেন- “মাই ওয়াইফ, মাই লাইফ”।

উল্লেখ্য যে সুজানার আগে একটি বিয়ে হয়েছিল। এবং সুজানা হৃদয়ের চাইতে বয়সে প্রায় ৬ বছরের বড়। এসব নিয়ে তাঁদের প্রেমে ঝামেলা কম হয়নি। সুজানা নিজেই সাড়া দিতেন না হৃদয়ের আহবানে।






মন্তব্য চালু নেই