মেইন ম্যেনু

ভারতীয় ক্রিকেট দল যে কাজটা পারে না

কদিন আগে ইংল্যান্ডকে ৩৮২ রানের লক্ষ্য দিয়েও ঘাম ছুটে গেছে ভারতকে। ইংলিশরা শেষমেশ করতে পেরেছে ৩৬৬। ওয়ানডেতে এখন ৩০০-রান যে বিশাল কোনো স্কোর নয়, তা সদ্যসমাপ্ত ভারত-ইংল্যান্ড ওয়ানডে সিরিজে সেটি ভালোই বোঝা গেল। তিন ম্যাচ সিরিজে দুই দল মিলে তুলেছে দুই হাজারের বেশি রান; যা কিনা নতুন রেকর্ড!

কিন্তু টি-টোয়েন্টি সিরিজের শুরুতে আবার ভিন্ন ছবি। কাল কানপুরে প্রথম টি-টোয়েন্টি ইংল্যান্ডকে ১৪৭ রান লক্ষ্য দিয়েছিল ভারত। ক্রিকেটের যে সংস্করণের প্রধান দাবি রানের বন্যা বইয়ে দেওয়া, সেখানে এটা কী আর স্কোর! ইংল্যান্ড ১১ বল ও ৭ উইকেট হাতে রেখে অনায়াসে পেরিয়েও গেছে সেটা।

টোয়েন্টিতে ১৫০-এর নিচে রান করে ভারতের পরাজয়ের ঘটনা অবশ্য নতুন নয়। বরং এই স্কোর করে টেস্ট খেলুড়ে দেশগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি হারের রেকর্ড তাদেরই। ১৩ ম্যাচে মাত্র ভারত জিতেছে ২টিতে, ৯ ম্যাচে হার।

একটি টাই, বাকিটি পরিত্যক্ত। জয়-পরাজয়ের অনুপাত ০:২২২। ভারতের মূল শক্তি ব্যাটিং। ব্যাটসম্যানরা রানের পাহাড় না গড়ে দিলে বোলারদের পক্ষে কাজটা যে ভীষণ কঠিন হয়ে যায়, পরিসংখ্যান সেটিই বলছে।

১৫০ টি-টোয়েন্টি বিবেচনায় কোনো রান নয়। এই রান রক্ষা করতে পারা তাই ভীষণ চ্যালেঞ্জ। আর এই কাজটাতে ভারত সবচেয়ে বাজে। ভারতের পর এ তালিকায় আছে বাংলাদেশ। ১৮ ম্যাচে ৩টিতে জয়, হেরেছে ১৩টিতে। ফল আসেনি বাকি ২টিতে। বাংলাদেশের পরে আছে জিম্বাবুয়ে, ১৩টির ১০ ম্যাচে হেরেছে। জিতেছে ৩টিতে।

১৫০-এর কম রান করে সবচেয়ে বেশি জিতেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। ২৭ ম্যাচের ১৩টিতে জিতেছে প্রোটিয়ারা, হারও ১৩টিতে। ফল আসেনি এক ম্যাচে। জয়-পরাজয়ের অনুপাত ১:১৫০ করলেও যে জেতা যায়, প্রোটিয়ারা তারই প্রমাণ। টি-টোয়েন্টি আর একটা দলই এত কম রান করেও ১০ কিংবা এর বেশি ম্যাচ জিতেছে। সেটি পাকিস্তান। এমন ২৮ ম্যাচের ১১টিতে জিতেছে তারা, হেরেছে অবশ্য ১৭টিতে।

টি-টোয়েন্টিতে রান ‘ডিফেন্ড’ করার কাজটায় অবশ্য পাকিস্তান টেস্ট খেলুড়ে দশ দলের মধ্যে সবার ওপরে। প্রথমে ব্যাট করে ৫৬ ম্যাচের ৩৬টাই জিতেছে তারা। ভারত এ কাজে মোটামুটি। প্রথমে ব্যাট করেছে এমন ৩৯ ম্যাচের ২১টি জিতলেও হেরেছে ১৬টিতে। পরে বোলিং করে ম্যাচ জিতিয়ে নেওয়ার কাজটাতে সবচেয়ে বাজে জিম্বাবুয়ে ও বাংলাদেশ। এমন ২৮ ম্যাচের ১৯টিতে হেরেছে জিম্বাবুয়ে। আর ২৭ ম্যাচের ১৬টিতে হেরেছে বাংলাদেশ।-প্রথম আলো






মন্তব্য চালু নেই