মেইন ম্যেনু

বয়স ১৫ হলেই জাতীয় পরিচয় পত্র

২০১৫-১৬ সালের ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমে ১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী বাংলাদেশী নাগরিকদের নিবন্ধন করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। একই সঙ্গে তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র (এনআইডি) প্রদান করা হবে।

তবে তারা ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন না। নিবন্ধিত নাগরিকদের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হলে তারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সুলতানুজ্জামান মো. সালেহ উদ্দিন মঙ্গলবার কমিশনে এ সংক্রান্ত কার্যপত্র উত্থাপন করলে কমিশন তা পর্যালোচনা করে জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদানের নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়। কমিশন সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

কার্যপত্র থেকে জানা জায়, ২০০০ সালের ১ জানুয়ারি বা তার আগে জন্মগ্রহণকারী নাগরিকদের নিবন্ধনের আওতায় আনা হবে এবং তাদের জাতীয় পরিচয় পত্র দেওয়া হবে। তবে তারা ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন না। নিবন্ধিত নাগরিকদের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হলে তারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হবেন।

কার্যপত্র পত্রে বলা হয়েছে, তিনটি ধাপে ২০১৫-১৬ সালের ভোটার তালিকায় হালনাগাদ কার্যক্রম করা হবে। প্রথম ধাপে ১ আগস্ট ২০১৫ থেকে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ ও যাচাই। ২০ আগস্ট থেকে ১৯ অক্টোবর পর্যন্ত নিবন্ধন।

দ্বিতীয় ধাপে ১ অক্টোবর ২০১৫ থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত তথ্য সংগ্রহ। ২৫ অক্টোবর ২০১৫ থেকে ২৪ ডিসেম্বর পর্যন্ত নিবন্ধন। তৃতীয় ধাপে ১ ডিসেম্বর থেকে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত তথ্য সংগ্রহ এবং ২৮ ডিসেম্বর থেকে ২৭ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত নিবন্ধন। ২০১৬ সালের ২ মে’র মধ্যে নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষ করার পরিকল্পনা রয়েছে ইসির। প্রায় ৭২ লাখ নাগরিককে এ নিবন্ধনের আওতায় আনতে চায় ইসি।

এ বিষয়ে ইসির যুগ্ম-সচিব জেসমিন টুলী সাংবাদিকদের বলেন, ‘১৫ থেকে ১৭ বছর বয়সী অথবা ১৮ বছরের কম বসয়ীদের জাতীয় পরিচয় পত্র দেওয়ার বিষয়ে কমিশন বৈঠকে আলোচনা হয়েছে।’

জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধন আইন (সংশোধন) ২০১৩ অনুযায়ী, নির্বাচন কমিশন কম বসয়ী নাগরিকদের জাতীয় পরিচয় পত্র দেওয়ার উদ্যোগ নেয় ইসি। ওই ধারায় বলা হয়েছে, নির্বাচন কমিশন ভোটার ছাড়াও অন্যান্য নাগরিককে জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদান করতে পারবেন। এ ছাড়া জাতীয় পরিচয় পত্র নিবন্ধন আইন-২০১৪ এর বিধি-৪ অনুযায়ী ভোটার হওয়ার যোগ্য নয় এমন নাগরিককে পরিচয় নিবন্ধন ও জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদান করার বিধান রয়েছে।



« (পূর্বের সংবাদ)



মন্তব্য চালু নেই