মেইন ম্যেনু

বিষাক্ত ভারতীয় চা ! এ বিষয়ে সকলে সজাগ থাকা উচিত

মন প্রফুল্ল রেখে শরীর সতেজ করে কাজে গতি আনতে নিশ্চয় এক কাপ চায়ে চুমুক দিতে চাইবেন। কিন্তু তার আগে, নিশ্চিত হয়ে নেবেন ওই চা কোন ব্র্যান্ডের, যদি ভারতীয় ব্র্যান্ডের হয়- তবে প্রাণ বাঁচাতে অবশ্যই তা ফেলে দিন!

ভারতীয় চা বিষাক্ত কীটনাশক মেশানো বলে সম্প্রতি দেশটির একটি খাদ্য ও কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠানের প্রতিবেদন প্রকাশের পর চা-প্রেমীদের এমন পরামর্শই দিতে হচ্ছে।

দেশটির চা শিল্পের হালচাল নিয়ে ‘ফুড অ্যন্ড অ্যাগ্রিকালচার টিম অব গ্রিনপিস ইন্ডিয়া’ নামে ওই গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, কেবল দেশের বাজারের কর্তৃত্বেই নয়; রাশিয়া, ব্রিটেন, যুক্তরাষ্ট্র, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইরানসহ আন্তর্জাতিক বাজার দাপিয়ে বেড়ানো ভারতীয় চায়ে কীটনাশক মেশানো হচ্ছে আশঙ্কাজনক মাত্রায়।

দেশটির শীর্ষ ১১টি চা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৮টি প্রতিষ্ঠানের ৪৯টি পৃথক প্যাকেজ চা পরীক্ষা করে দেখা গেছে-

*৪৯টি প্যাকেজ চা’র (নমুনা) ৪৬টির মধ্যেই অন্তত একধরনের হলেও বিষাক্ত কীটনাশক মেশানো হয়েছে।

*এসব নমুনার ২৯টিতেই বিষাক্ত কীটনাশকের মিশ্রণের পরীক্ষার ফলাফল ‘পজিটিভ’ পাওয়া গেছে।

*এসব নমুনায় পৃথক ব্র্যান্ডের মোট ৩৪ ধরনের কীটনাশক পাওয়া গেছে।

*এসব নমুনার প্রত্যেকটিতে প্রায় ৬৭ শতাংশ করে নিষিদ্ধ ডিডিটি কীটনাশক (ডাইক্লোরো ডাইফেনাইল ট্রাইক্লোরো ইথেন‍, গৃহস্থালি পরিষ্কারে ব্যবহৃত রাসায়নিক) পাওয়া গেছে। ১৯৮৯ সালে বিপজ্জনক চিহ্নিত করে এ কীটনাশকটি ভারতীয় কৃষিতে ব্যবহার নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়।

২০১৩ সালের মে থেকে ২০১৪ সালের জুন পর্যন্ত এক বছরের বেশি সময় ধরে এ গবেষণা চালানো হয়।

চা শিল্পে এ ধরনের বিপর্যয় প্রসঙ্গে গ্রিনপিস ইন্ডিয়ার জ্যেষ্ঠকর্মী নেহা সৈগল বলেন, ভারতীয় ‍চা আমাদের জাতীয় গর্ব এবং এ কারণে পরিবেশ ও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর এমন কোনো বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ এর সঙ্গে মেশানো উচিত নয়।

চা শিল্পের এ অবনতিতে এটিকে রক্ষায় সংশ্লিষ্ট সকল অংশীদারের এগিয়ে আসা উচিত বলেও মন্তব্য করেন নেহা।

যদিও এ অভিযোগ অস্বীকার করে ভারতীয় চা বোর্ড দাবি করেছে, সেদেশের সকল চা সম্পূর্ণ নিরাপদ ও সর্বোচ্চ মান বজায় রেখে প্রস্তুত হয়।






মন্তব্য চালু নেই