মেইন ম্যেনু

বাগেরহাটে বাস-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে নিহত ৭

বাগেরহাটের ফকিরহাটে বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে মাইক্রোবাসের ভেতরে থাকা সাতজন ঘটনাস্থলে নিহত হয়েছে। এতে আহত হয়েছে আরো কয়েকজন।

শনিবার বিকেল সাড়ে ৫ টার দিকে খুলনা-মাওয়া মহাসড়কের ফকিরহাট উপজেলার তৈয়েব আলীর বটতলায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এসময় ওই মহাসড়কে যানচলাচল সাময়িক বন্ধ হয়ে যায়।

নিহতদের মধ্যে মাইক্রোচালকসহ দুই শিশু, তিনজন নারী ও অপর একজন পুরুষ রয়েছে। মাইক্রো চালকের নাম সৈয়দ মনিরুল ইসলাম। তার বাড়ি খুলনা মহানগরীরর খালিশপুরের রায়ের মহল এলাকায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চিতলমারী থেকে খুলনাগামী মাইক্রোবাসটি মাওয়া মহাসড়কের ফকিরহাটের তৈয়বের বটতলায় পৌঁছালে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা মাদারীপুরগামী রূপসী পরিবহনের বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ বাধে। এসময় ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাসের চালক সৈয়দ মনিরুল ইসলামসহ সাতজন নিহত হয়।

দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত চারজনকে ফকিরহাট হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে দুইজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় দ্রুত খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

মাইক্রোবাসটি রূপসী পরিবহনের নিচে আটকে দুমড়ে মুচড়ে যাওয়ায় বাগেরহাট, পিরোজপুর ও খুলনার সঙ্গে মাওয়া মহাসড়ক হয়ে ঢাকামুখে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এদিকে, পুলিশ মাইক্রোবাস চালকের পকেটে থাকা আইডি কার্ড থেকে তার নাম পরিচয় উদ্ধার করতে পারলেও নিহত অপর ছয় যাত্রীর কোনো নামপরিচয় এখনো উদ্ধার করতে পারেনি।

বাগেরহাট ট্রাফিক বিভাগের ওসি (টিআই) আব্দুল হালিম জানান, দুর্ঘটনার শিকার সবাই বাগেরহাটের চিতলমারীতে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে খুলনায় ফিরছিল।

ফকিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন জানান, দুর্ঘটনার পর মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টা থেকে দুর্ঘটনাস্থলের উভয় পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

ওসি আরো জানান, দুর্ঘটনার পরপরই স্থানীয় জনগণ, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন হতাহতদের উদ্ধার করে ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করায়।






মন্তব্য চালু নেই