মেইন ম্যেনু

বরিশালে কৃষকের ভাগ্য পানির নিচে

কল্যাণ কুমার চন্দ, বরিশাল: জমিতে পাকা ও আধাপাকা বোরো ধান কাটার আগমুহুর্তে গত কয়েকদিনের অবিরাম প্রবল বর্ষণে জেলার দশ উপজেলার শত শত একর জমির বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে গেছে। ফলে পাকা ও আধাপাকা ধান উত্তোলনের চিন্তায় দিশেহারা হয়ে পরেছে কৃষক।

সূত্রমতে, পানি নিস্কাসনের ব্যবস্থা না থাকায় বর্ষার পানিতে তলিয়ে থাকা জেলার গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া ও নলচিড়া ইউনিয়নের বিলাঞ্চলের প্রায় দুই হাজার একরেরও অধিক জমির পাকা আধাপাকা বোরো ক্ষেত এখন পানি নিচে তলিয়ে গেছে। ফলে ওই এলাকার কৃষকদের মাঝে চরম হতাশার সৃষ্টি হয়েছে। শনিবার বিকেলে ওই এলাকার শত শত কৃষকেরা বিষয়টি জেলার দুইবারের শ্রেষ্ঠ মাহিলাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈকত গুহ পিকলুকে অবহিত করেন। তাৎক্ষনিক চেয়ারম্যান সরেজমিন পরিদর্শন করে এলাকাবাসীদের সাথে নিয়ে ড্রেনেজ ব্যবস্থার মাধ্যমে পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলার সদর উপজেলা, বানারীপাড়া, বাকেরগঞ্জ, হিজলা, মুলাদী, মেহেন্দীগঞ্জ, উজিরপুর, আগৈলঝাড়া, বাবুগঞ্জ ও গৌরনদী উপজেলার নিন্মাঞ্চলের অধিকাংশ বোরো ক্ষেত বর্ষার পানিতে তলিয়ে গেছে। ফলে জমিতে পাকা ও আধাপাকা বোরো ধান কাটার আগমুহুর্তে অবিরাম বর্ষণে শত শত একর জমির বোরো ধান পানির নিচে তলিয়ে যাওয়ায় ধান উত্তোলনের চিন্তায় কৃষকেরা এখন দিশেহারা হয়ে পরেছেন।

আগৈলঝাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন জানান, উপজেলার ১০ হাজার ৪১৮ হেক্টর জমি চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ ছিল ৪৬ হাজার ৬৯২ দশমিক ৫ মে.টন চাল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ১২৪ হেক্টর জমি বেশী চাষ করে উপজেলায় মোট আবাদ হয়েছে ১০ হাজার ৫৪২ হেক্টর জমি।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকার কারণে এবং সময়মত সেচ ও সার ব্যবহার করে কৃষকেরা তাদের জমিতে বাম্পার ফলন ফলিয়েছিলো। কিন্তু গত ১৯ এপ্রিল রাত থেকে বিরূপ আবহাওয়ার কারণে আকস্মিক কাল বৈশাখীর ঝড়ো হাওয়ার সাথে ভারি বৃষ্টিসহ শিলা বৃষ্টির কারণে কৃষকের বোরো জমির পাঁকা ফসল ক্ষেতে দেড় থেকে দুই ফুট পানি জমে ধান গাছ বাতাসে পড়ে গিয়ে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।






মন্তব্য চালু নেই