মেইন ম্যেনু

প্রয়োজনে শামীম ওসমানকে জিজ্ঞাসাবাদ

সাত খুনের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমানসহ আরো অনেককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন উচ্চ আদালতের নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটির চেয়ারম্যান অতিরিক্ত সচিব শাজাহান আলী মোল্লা।

রোববার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের সাবেক জেলা প্রশাসক (ডিসি) মনোজ কান্তি বড়ালকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। তবে এসময় সাবেক জেলা প্রশাসক সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলেননি।

নারায়ণগঞ্জে ৭ খুনের মামলায় প্রধান আসামি নূর হোসেনের সঙ্গে স্থানীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের ফোন আলাপের ভিত্তিতে তদন্ত কমিটি তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে কি না এমন প্রশ্নে সচিব শাজাহান আলী বলেন, ‘যাকে যাকে প্রয়োজন হবে তদন্তের স্বার্থে তাদের সবাইকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া। প্রয়োজন হলে আরো অনেককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

তদন্ত প্রক্রিয়া বর্তমানে কোন পর্যায়ে রয়েছে জানেত চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা উচ্চ আদালতের নির্দেশে কাজ করছি। তদন্ত চলছে। আজ আমরা নারায়ণগঞ্জের সাবেক জেলা প্রশাসক (ডিসি) মনোজ কান্তি বড়াল ও পুলিশ সুপার (এসপি) সৈয়দ নূরুল ইসলামকে ডেকেছি। তাদের সঙ্গে যে কথা হয়েছে তা আমরা অডিও রেকর্ড করেছি। আশা করি একটি ভালো কিছু বের করতে পারবো। তবে অপেক্ষা করতে হবে। মহামান্য আদালত যে সময় দিয়েছেন তার মধ্যে আমরা একটি অগ্রগতি প্রতিবেদন দেবো। ওই সময়ের মধ্যে তদন্ত শেষ না হলে আদালতের কাছে আমরা আরো সময় চাইবো।’ তবে এ কমিটির অগ্রগতি প্রতিবেদন আগামী ৫ জুন জামা দেয়ার প্রস্তুতি রয়েছে বলে জানা গেছে।

গত সপ্তাহে নারায়ণগঞ্জের সাবেক ডিসি ও এসপিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চিঠি দেয় তদন্ত কমিটি। পূর্ব নির্ধারিত তদন্তের অংশ হিসেবে রোববার মন্ত্রণালয়ে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় থেকে সচিবালয়ের ৬ নম্বর ভবনের ১৪ তলার একটি কক্ষে অতিরিক্তি সচিব শাহজাহান আলী মোল্লার নেতৃত্বে তদন্ত কমিটির মুখোমুখি হন এসপি নুরুল ইসলাম। দুপুর দেড়টার দিকে তিনি বেরিয়ে যান। তবে ওই সময় তিনিও সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

উল্লেখ্য, গত ৫ মে বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি গোবিন্দ চন্দ্র ঠাকুরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের ঘটনায় প্রকাশিত প্রতিবেদন বিবেচনায় নিয়ে স্বতঃপ্রণোদিত রুল জারির পাশাপাশি অন্তর্বর্তীকালীন একটি আদেশ দেন। হাইকোর্টের আদেশে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শাজাহান আলী মোল্লাকে চেয়ারম্যান ও উপ-সচিব আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিনকে সদস্য সচিব করে সাত সদস্যের একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়। নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের সঙ্গে প্রশাসনের কোনো সদস্য বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সদস্যের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভূমিকা ও সংশ্লিষ্টতা রয়েছে কি না তা উদ্ঘাটন করাই এ কমিঠির কাজ। একই সঙ্গে অপহরণের খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অপহৃত ব্যক্তিদের জীবিত উদ্ধারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো অবহেলা বা ইচ্ছাকৃত গাফিলতি ছিল কি না তাও নির্ণয় করবে।






মন্তব্য চালু নেই